1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : shaker :
  4. [email protected] : shamim :
রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ০৫:২৭ পূর্বাহ্ন

অধিদপ্তরের ডিজির ফাদে স্বাস্থ্যমন্ত্রী

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই, ২০২০
  • ৪০ বার পড়া হয়েছে

ডেইলিখবরডেস্ক: রিজেন্ট হাসপাতালের সঙ্গে চুক্তির অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের(ডিজি)’র অনুরোধে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তবে মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের মধ্যে কোনো সমস্যা আছে বলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী তা মনে করেন না। হয়তো সাময়িক একটা ভুল বোঝাবুঝি হতে পারে। আর সেটার জন্য কোনো স্বাস্থ্য সেবা ব্যাহত হচ্ছে না বলে মনে করেন তিনি। তবে মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা মনে করেন ডিজি কৌশলে তার স্বার্থ বজায় রাখতে মন্ত্রীকে প্রতারক সাহেদেও কাজে ব্যবহার করেছেন। বিষয়টি হচ্ছে ডিজির ফাদে স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে মঙ্গলবার দুপুরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন জেকেজি ও রিজেন্ট হাসপাতাল এদুটি সংস্থাকে কিছু কাজের জন্য নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল।

একটা হলো জেকেজি। যদি অন্যায় কাজ করে থাকে তাহলে সেই প্রতিষ্ঠান ও তিনি (প্রতিষ্ঠান কতৃপক্ষ) দায়ী। আরেকটি হলো রিজেন্ট হাসপাতালে। সেই হাসপাতালকে নিয়োগ দেওয়ার বিষয়ে কিছু প্রক্রিয়া আছে। সেই প্রক্রিয়াগুলো পালন করে অধিদপ্তর। সেই প্রক্রিয়া পালন করে তাদের নিয়োগ দেওয়া হয়েছে, সই করেছে।

তিনি বলেন, ‘আমরা ডিজি অফিসে একটি সভায় গিয়েছিলাম। আন্তমন্ত্রণালয় সভা ছিল। সচিবেরা ছিলেন, অন্যান্য ব্যক্তিরাও ছিলেন। ডিজির অনুরোধে… আপনারাও একটু থাকেন, চুক্তি সাক্ষর হবে। কী সেই সাক্ষর হবে। রিজেন্টের সঙ্গে সাক্ষর হবে। দুপুরের খাবারের পর। তো আমরাও সেখানে ছিলাম। আমরা খুশি ছিলাম, যে একটা নতুন হাসপাতাল আসল করোনার চিকিৎসা দেবে। প্রাইভেট তো তখন করোনা চিকিৎসা দিতে দ্বিধা করছে। ওনারাও আসল। ওনারা এসে সই-স্বাক্ষর করল, আমরাও খুশি হলাম। বাস! আমরা ওখান থেকে সরে গেলাম।পরবর্তীকালে যে ঘটনাগুলো তা দুর্ভাগ্যজনক, ন্যাক্বারজনক । যে কাজ করেছে, অন্যায় কাজ করেছে। অন্যায় কাজ করলে আইন অনুযায়ী যে ব্যবস্থা আছে সেটা নেওয়া হয়েছে। সে অনুয়ায়ী শাস্তি হবে। এখানে মন্ত্রণালয় কোনো নির্দেশনা দিয়েছে কি না, দিলে তো ফাইলেই থাকত। ব্যাখ্যা (ডিজির কাছে চাওয়া ব্যাখ্যা) দিলেই পাবেন। সচিব ব্যাখ্যা চেয়েছেন। দেখি কি ব্যাখ্যা দেয়।’

বিভিন্ন হাসপাতাল ও ডায়াগস্টিক সেন্টারের লাইসেন্সের বিষয়ে অভিযান চালানোর কথা জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এই অভিযান চালোনার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এবং একটি টাস্কফোর্স গঠন করে দেওয়া হচ্ছে। তারা প্রতিনিয়ত পরিদর্শন করবে এবং যাচাই করবে।

সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার পর স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আব্দুল মান্নান ও স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলী নূরের সঙ্গে আলাদা বৈঠক করেন। বৈঠকে সচিবদের দেশের সব ক্লিনিক ও হাসপাতালে সাধারণ মানুষ সেবা বঞ্চিত হচ্ছে কি না সে ব্যাপারে তৎপর থাকার নির্দেশ দেন। পাশাপাশি, কোনো ক্লিনিক ও হাসপাতালে কোনো অনৈতিক কর্মকান্ড হলে দ্রততার সঙ্গে জোরালো ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন মন্ত্রী। মন্ত্রনারয়ের সুত্রগুলো জানায করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় মন্ত্রণালয থেকে যেসব ববস্থা নেয়া হয়েছে তাতে সমালোচনার ডালাপালারই বিস্তার ঘটেছে।অভিযোগ আছে নানা দুর্নীতির বেড়াজালে আটকে আছে স্বাস্থ্যমন্ত্রনালয়।

এ জাতীয় আরো খবর