1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : shaker :
  4. [email protected] : shamim :
সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১০:১৫ অপরাহ্ন

এনএসআইয়ের দেয়া তথ্যে ধরা পরলো কোটি টাকার অবৈধ পণ্য

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় সোমবার, ১২ জুলাই, ২০২১
  • ২৪ বার পড়া হয়েছে

ডেইলি খবর ডেস্ক: জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ধরা পরলো কোটি টাকার অবৈধপন্য। স্মাগলাররা অন্যান্য গোয়েন্দাদের চোখ ফাকি দিয়ে বেড়িয়ে গেলেওে এনএসআই-এর চোখ ফাকি দিতে পারেনী। সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দরে ক্যাপসিকাম আমদানির ঘোষণা দিয়ে ভারত থেকে অবৈধভাবে আনা বিপুল পরিমাণ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের স্মার্টফোন, বিদেশি সিগারেট, নেশাজাতীয় ওষুধ, শাড়ি ও থ্রিপিস জব্দ করা হয়েছে। সুত্র জানায় জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে গত শনিবার রাতে ভোমরা স্থলবন্দর শুল্ক গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা ওই আমদানি নিষিদ্ধ মালামাল জব্দ করেন। যার আনুমানিক মূল্য এক কোটি টাকার বেশি। ভারতের ঘোজাডাঙ্গা স্থলবন্দর থেকে সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দরে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট মামুন ট্রেডার্সের কাগজপত্র দিয়ে গত শনিবার বিকেলে ক্যাপসিকামের নামে বিপুল পরিমাণ এসব আমদানি নিষিদ্ধ মাল ভারতীয় ট্রাকযোগে বন্দরে প্রবেশ করানো হয়। যার আমদানিকারক বগুড়ার মেসার্স সিদ্ধার্থ এন্টারপ্রাইজ। বিষয়টি জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে। এরপর তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ ভারতীয় ওই ট্রাকে গভীর রাত পর্যন্ত তল্লাশি চালায়। এরপর ওই ট্রাকে থাকা ৮১টি কার্টন থেকে ৩১২টি ভারতীয় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের দামি মোবাইল ফোন, কোরিয়ান সিগারেট এক লাখ ২০ হাজার পিস, ভারতীয় যৌন উত্তেজক ট্যাবলেটসহ বিভিন্ন ধরনের ওষুধ ও ইনজেকশন ২৮ কার্টন, ভারতীয় দামি শাড়ি ২৩৪টি, থ্রিপিস ৪৭টি, ওড়না ৬টি, লেডিস ব্যাগ ৮টি, বেবী ব্যাগ ১টি ও ৫৩ কার্টন ভর্তি এক হাজার ৬০ কে জি ক্যাপসিকাম জব্দ করা হয়। যার আনুমানিক মূল্য এক কোটি টাকার বেশি বলে অভিযানে থাকা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের কাউকে পাওয়া যায়নি। স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জানান, ভোমরা বন্দরে শুল্ক ফাঁকি ও অবৈধ মাল আমদানির সিন্ডিকেট সক্রিয় হয়ে উঠেছে। ওই সিন্ডিকেটের নেতৃত্ব দিচ্ছে শান্ত, সবুর ও আলতাফ নামের কয়েকজন প্রতারক। আগেও এভাবে শুল্ক ফাঁকি দিয়ে প্রতারক চক্রটি কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছে। ভোমরা স্থলবন্দর শুল্ক স্টেশনের সহকারী কমিশনার আমির মাহমুদ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান,এ ঘটনায় কাস্টমসের পক্ষ থেকে বিভাগীয় মামলা দায়ের হচ্ছে।

 

বিজ্ঞাপন

এ জাতীয় আরো খবর

বিজ্ঞাপন