1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : shaker :
  4. [email protected] : shamim :
সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:৩৮ পূর্বাহ্ন

এবার ‘তারুণ্যে’ আস্থা নির্বাচকদের

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় বুধবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২১
  • ১৪ বার পড়া হয়েছে

পাকিস্তানের বিপক্ষে আসন্ন তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের জন্য দল গঠনে নজিরবিহীন অস্থিরতা দেখা গেছে নির্বাচকমহলে। রুদ্ধশ্বাস সেসব সভার পর যে স্কোয়াড ঘোষণা করা হয়েছে, তা একরকম প্রত্যাশিতই ছিল। আমিরাতে বিশ্বকাপ খেলে আসা স্কোয়াড থেকে মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে রুবেল হোসেন, লিটন দাস ও সৌম্য সরকারকে বাদ দেওয়া হয়েছে। চোটের কারণে সাকিব আল হাসানের অনুপস্থিতি মিলিয়ে দলে নেওয়া হয়েছে নতুন ছয়জনকে। তাঁরা হলেন নাজমুল হোসেন, সাইফ হাসান, আমিনুল ইসলাম, শহিদুল ইসলাম, ইয়াসির আলী ও আকবর আলী। শেষোক্তজন এই প্রথম ডাক পেলেন জাতীয় দলে।

১৯ নভেম্বর সিরিজের প্রথম ম্যাচ সামনে রেখে বাংলাদেশ দলের প্রস্তুতি শুরু হয়েছে ১৩ নভেম্বর। কিন্তু সেটিকে জাতীয় দল বলার উপায় ছিল না, দলই যে ঘোষিত হয়নি। আজ-কাল করে শেষমেশ গতকাল দুপুরের পর দল ঘোষণা করেছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন। সদ্যঃসমাপ্ত বিশ্বকাপ ব্যর্থতার মেঘ মাথায় নিয়েই শুরু করেন তিনি, ‘বিশ্বকাপ স্কোয়াড থেকে বেশ কিছু পরিবর্তন আছে, ছয়জনের মতো। হতাশার একটা বিশ্বকাপ শেষ করেছি। এখন নতুন করে পথচলা শুরু। বিশ্বকাপের আগে ঘরের মাঠে দল বেশ ভালো খেলেছিল। মুজিববর্ষে সাদা বলে প্রায় সব সিরিজে জিতেছি। এবার পাকিস্তানের সঙ্গে খেলছি। ওরা যথেষ্ট ভালো দল। টি-টোয়েন্টিতেও অনেক শক্তিশালী। আশা করছি, ঘরের মাঠে ছেলেরা ভালো করবে।’

এই নতুন পথচলায় নির্বাচকদের আস্থার তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন অভিজ্ঞ ক্রিকেটার মুশফিক। কয়েক দিন ধরেই শোনা যাচ্ছিল, সাবেক অধিনায়ক নাকি নিজেই বিশ্রাম চেয়েছেন। যদিও দলসংশ্লিষ্ট সূত্র মতে মুশফিককে বাদ দিয়েই নির্বাচনী সভার পর সভা হয়েছে। যে কারণে ১৩ নভেম্বর টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদের অধীনে ছায়া দলের অনুশীলনের আশপাশেও দেখা যায়নি মুশফিককে। তবে মিনহাজুল গতকাল বলেন, ‘মুশফিক বিশ্রাম চায়নি। এই ধরনের কোনো আলোচনাই হয়নি। আমরা টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে আলোচনা করে সামনের চারটি টেস্টের কথা বিবেচনা করেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’ পাকিস্তানের বিপক্ষে দুটি এবং এরপর নিউজিল্যান্ডে আরো দুটি মিলিয়ে মোট চারটি টেস্টের জন্য মুশফিককে ঝরঝরে রাখতে চাচ্ছেন নির্বাচকরা। যদিও ২০২২ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়ে নির্বাচকদের শুরু করে দেওয়া ভাবনা এবং নুরুল হাসানের বিকল্প হিসেবে আকবর আলীকে পাকিস্তান সিরিজের স্কোয়াডে রাখার অর্থ একটাই—এই ফরম্যাটে জাতীয় দলে ফিরতে হলে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হবে মুশফিককে।

মুশফিকের মতো লিটন দাস ও সৌম্য সরকারকেও বিশ্বকাপের পর মিরপুরে দেখা যায়নি। দেশে ফিরে সৌম্য চলে গেছেন সিলেটে, জাতীয় লিগের ম্যাচ খেলতে। লিটন খেলছেন রংপুরের হয়ে। তাই টপ অর্ডারে সাইফ ও নাজমুল হাসানকে নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে সাইফের পরিবর্তে যুব বিশ্বকাপজয়ী দলের পারভেজ ইমন প্রথম পছন্দ ছিলেন। কিন্তু ফিটনেসে ঘাটতি থাকায় পিছিয়ে পড়েছেন তিনি। তবে বিশ্বকাপে একটি ম্যাচও খেলার সুযোগ না পাওয়া রুবেল হোসেন কী কারণে বাদ পড়লেন, সেটি অজ্ঞাত। বিশ্বকাপের রিজার্ভ থেকে রুবেলকে রেখে দেশে ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া লেগস্পিনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লবকে স্কোয়াডে রাখার কারণ ব্যাখ্যা করেছেন মিনহাজুল, ‘ঘরের মাঠে যত খেলা হয়েছে, বিপ্লব সব সময় স্কোয়াডে ছিল। টিম ম্যানেজমেন্ট যদি চায়, খেলাবে। আমরা মনে করি, একটা লেগস্পিনার আমাদের দরকার। দেখা যাক, ওকে দিয়ে শুরু করা যায় কি না।’

সেই শুরুর আগে সবার সমর্থন চেয়েছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল, ‘এই সময়ে আমরা সবার সমর্থন চাচ্ছি। খেলোয়াড়দের ভালো করে সাপোর্ট দেওয়া, যাতে ওদের সেরা খেলাটা দেখতে পারি।’ এই সুযোগ মাহমুদ উল্লাহরা পাবেন ১৯, ২০ ও ২২ নভেম্বর মিরপুরে অনুষ্ঠেয় তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে। এরপর সফরকারী পাকিস্তানের বিপক্ষে দুই টেস্টের সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। তাই টেস্ট স্কোয়াড এখনো ঘোষিত হয়নি।

স্কোয়াড : মাহমুদ উল্লাহ (অধিনায়ক), মোহাম্মদ নাঈম, নাজমুল হোসেন, আফিফ হোসেন, নুরুল হাসান, মেহেদী হাসান, আমিনুল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান, শরীফুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ, শামীম হোসেন, নাসুম আহমেদ, আকবর আলী, সাইফ হাসান, ইয়াসির আলী, শহীদুল ইসলাম।

বিজ্ঞাপন

এ জাতীয় আরো খবর