1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : shaker :
  4. [email protected] : shamim :
বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৯:১২ পূর্বাহ্ন

এমপি পদের যোগ্যতা হারিয়েছেন হাজি সেলিম

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় বুধবার, ১০ মার্চ, ২০২১
  • ৭৯ বার পড়া হয়েছে

অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় উচ্চ আদালতে আওয়ামী লীগের এমপি হাজি সেলিমের ১০ বছরের কারাদণ্ড বহাল থাকায় প্রশ্ন উঠেছে তার এমপি পদ থাকা নিয়ে।

আইনবিশেষজ্ঞরা বলছেন, হাইকোর্ট থেকে দণ্ডিত হওয়ার পর হাজি সেলিম এমপি পদে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছেন। এখন স্পিকার পদ বাতিলের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।

সংবিধান ও নির্বাচনি আইন অনুযায়ী, ফৌজদারি অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়ে ন্যূননতম দুবছর দণ্ডিত হলে সংসদ সদস্য হওয়ার ও থাকার যোগ্যতা হারান যে কেউ। মুক্তিলাভের পাঁচ বছর পার না-হওয়া পর্যন্ত ভোটে অংশ নেওয়া যায় না।

দণ্ড বহাল থাকায় হাজি সেলিমের এমপি পদ আর নেই, মনে করেন সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ। তিনি যুগান্তরকে বলেন, একজন এমপি যদি ফৌজদারি অপরাধ করেন, আর দুই বছরের সাজা হয়, তাহলে তার এমপি পদ থাকবে না। এমপি পদ খারিজের জন্য শুধু প্রমাণ হতে হবে, তিনি ফৌজদারি অপরাধ করেছেন, সেই অপরাধের জন্য তার সাজা হয়েছে। তবে সর্বোচ্চ আদালতে (আপিল বিভাগ) আপিল করলে যদি সেই সাজা স্থগিত করেন, তাহলে তার এমপি পদ আপাতত বাতিল হবে না।

সংবিধানের ৬৬(২)-এর (ঘ) ধারা উল্লেখ করে আইন বিশেষজ্ঞ, ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম বলেন, আইন অনুয়ায়ী হাজি সেলিম সংসদ সদস্য পদে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছেন। তিনি বলেন, সংবিধানে স্পষ্ট উল্লেখ আছে, ফৌজদারি অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়ে ন্যূননতম দুবছর দণ্ডিত হলে সংসদ সদস্য থাকার যোগ্যতা হারাবেন যে কেউ।

সংবিধান অনুযায়ী হাজি সেলিমের এমপি পদ থাকবে না বলে মন্তব্য করেছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। তিনি যুগান্তরকে বলেন, হাজি সেলিমের সাজা স্থগিতের কোনো সুযোগ নেই।

সাজা বহালের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের পর সেটি দুদকের পক্ষ থেকে জাতীয় সংসদের স্পিকারের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে। এরপর স্পিকার হাজি সেলিমের এমপি পদ বাতিলের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন। যদিও হাজি সেলিমের আইনজীবী জানিয়েছেন, তারা এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার অবৈধ সম্পদ অর্জনের মামলায় আওয়ামী লীগের এমপি হাজি সেলিমের ১০ বছরের কারাদণ্ড বহাল রাখেন হাইকোর্ট। রায়ের অনুলিপি পাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে তাকে বিশেষ জজ আদালত-৭-এ আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে আত্মসমর্পণ না-করলে তার জামিননামা বাতিল করে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। বিচারপতি মঈনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি একেএম জহিরুল হকের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন।

বিজ্ঞাপন

এ জাতীয় আরো খবর