1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : shaker :
  4. [email protected] : shamim :
সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১০:০৩ অপরাহ্ন

করোনাকালে দু’পক্ষের রেশারেশিতে অচলপ্রায় দেওয়ানগঞ্জ সরকারি হাসপাতাল

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় রবিবার, ২১ জুন, ২০২০
  • ৮৪ বার পড়া হয়েছে

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ সরকারি হাসপাতালে দু’পক্ষের রেশারেশিতে চিকিৎসাব্যবস্থা প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। করোনার এই ক্রান্তিকালে হাসপাতালে চিকিৎসাই পাচ্ছেন না রোগীরা।

গতকাল ২০ জুন শনিবার দুপুরে ২টায় দেওয়ানগঞ্জ সরকারি হাসপাতালে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ব্যানারে আয়োজিত এই মানববন্ধনে হাসপাতালে স্বাস্থ্যকর্মীরা ছাড়াও উপ সহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার এবং হাসপাতালের অভ্যন্তরীণ স্টাফদের অংশগ্রহণ করতে দেখা গেছে। প্রায় শতাধিক স্বাস্থ্যকর্মী এবং বিভিন্ন পর্যায়ের স্টাফরা এই মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন ।

মানববন্ধনে বক্তারা হাসপাতালে গুটিকয়েক মিডওয়াইফ ও নার্সদের সেবা বন্ধ রেখে হাসপাতালের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক কার্যক্রম অব্যাহত রাখায় তাদের বিচার দাবি করেন। তাছাড়া অত্র হাসপাতালের উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ইউএইচএফপিও) ডা. আবু আহমদ শফীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র এবং চক্রান্তের কথা তুলে ধরে তার জোরালো প্রতিবাদ জানান।

একপক্ষের অভিযোগের প্রেক্ষিতে আরেক পক্ষ মানববন্ধনে দাঁড়ায় গতকাল

স্থানীয় এবং হাসপাতালের অভ্যন্তরীণ সূত্রে জানা যায়, অনেক দিন থেকেই হাসপাতালের বিভিন্ন অভ্যন্তরীণ ইস্যুকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষ একে অপরকে দোষারোপ করে আসছে। যার ধারাবাহিকতায় হাসপাতালের নার্সদের বিরাট একটি অংশ অনেকদিন থেকেই হাসপাতালের ইউএইচএফপিও ডা. আবু আহমদ শফীর বিরুদ্ধে বিভিন্নরকম অভিযোগ দিয়ে আসছিলেন। যার প্রেক্ষিতে জেলা সিভিল সার্জন ডা. প্রণয় কান্তি দাস হাসপাতালে এসে নার্সদের অভিযোগের বিষয়টি তদন্তও করে যান। তখন তিনি বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছেন বলে জানা গেছে।

এই অভিযোগের প্রেক্ষিতেই গতকাল ডা.শফীর পক্ষে মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। সেখানে ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ খণ্ডন এবং অভিযোগকারীদেরকে দুষ্কৃতিকারী হিসেবে চিহ্নিত করে তাদের বিচার দাবি করা হয়। এই বিষয়ে তারা এই আসনের সাংসদ আবুল কালাম আজাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। মানববন্ধনে অন্যান্যদের মধ্যে ভারপ্রাপ্ত পরিসংখ্যানবিদ আব্দুল হালিম, উপ সহকারি কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার ডাক্তার ফরহাদ হোসেন সেলিম হোসেনসহ অন্যান্য অফিস স্টাফরা উপস্থিত ছিলেন।

করোনার এই দুর্যোগকালে একটি সরকারি হাসপাতালের অভ্যন্তরীন দ্বন্দ্বের কারণে চিকিৎসাসেবা ব্যাহত হওয়ার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুলতানা রাজিয়া কালের কণ্ঠকে বলেন, এই মহাদুর্যোগের সময় সবার উচিত সবকিছু ভুলে গিয়ে নিজেদের পেশাগত কাজে মনোনিবেশ করা। দেশ এবং জাতির স্বার্থে এই মুহূর্তে সবাইকে স্বাস্থ্যসেবার কাজে আত্মনিয়োগ করার অনুরোধ জানান তিনি।

গতকালের মানববন্ধন সম্পর্কে ডা. শফী কালের কণ্ঠকে বলেন, আজকের মানববন্ধন আয়োজনের বিষয়ে আমি পরে অবগত হয়েছি। করোনার এই মহামারীতে মানববন্ধন গ্রহণযোগ্য নয়। এর মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে- এই ভুল মেসেজটি মানুষের কাছে যেতে পারে। আমি সবাইকে বিনীত অনুরোধ করছি, সবাই সবার অবস্থানে থেকে যেন সেবা কার্যক্রমকে সচল রাখেন। যেসব মিডওয়াইফ ও নার্সরা হাসপাতালে অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে ষড়যন্ত্রে ও দ্বন্দ্বে লিপ্ত, তাদের সম্পর্কে উচ্চপদস্থ মহলে অবহিত করা হয়েছে। আশা করা যায় তারা তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। দেশের করোনার এই পরিস্থিতিতে আমরা কারো মাঝে বিভক্তি চাই না। সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে হাসপাতালের সেবা কার্যক্রমকে এগিয়ে নেবেন বলে আমার প্রত্যাশা।

বিজ্ঞাপন

এ জাতীয় আরো খবর

বিজ্ঞাপন