1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : rubel :
  4. [email protected] : shaker :
  5. [email protected] : shamim :
শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ০৪:০৪ পূর্বাহ্ন

কাউন্সিলর ‘ম্যাজিক রতন’

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ২৩৩ বার পড়া হয়েছে

ডেইলি খবর ডেস্ক: আরামবাগ-মতিঝিলের ক্লাবপাড়ায় জুয়ারফর থেকে তোলা তুলে যার জীবন চলতে সেই ছেলেটা ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ২০ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ফরিদ উদ্দিন আহম্মদ ওরফে ম্যাজিক রতন আজ শতশত কোটি টাকার সম্পদের মালিক কিভাবে হলো তা নিয়ে দলে ও সরকারে গবেষনা সমালোচনা। অঢেল সম্পদ দেখে তার নাম হয়েছে ম্যাজিক রতন। কারণ আলাদিনের চেরাগ বল কথা।এই ম্যাজিককেই কারণ দর্শানোর (শোকজ) নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

মেয়রের নাম ভাঙিয়ে অবৈধ দোকান বৈধ করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগে তাঁকে এই নোটিশ দেওয়া হয়। ডিএসসিসির মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে ওই কাউন্সিলরকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। ডিএসসিসির মুখপাত্র ও জনসংযোগ কর্মকর্তা মো: আবু নাছের বৃহস্পতিবার রাতে সংবাদমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

কারণ দর্শানোর নোটিশে উল্লেখ করা হয়,গুলিস্তানের পুরান বাজার হকার্স মার্কেটসহ কয়েকটি মার্কেটে বর্তমান মেয়রের নাম ব্যবহার করে দোকান বরাদ্দ পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে বিভিন্নজনের কাছ থেকে টাকা নিয়েছেন কাউন্সিলর রতন। এমন খবর বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচার হয়েছে। স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন অনুযায়ী এটা অসদাচরণ। এতে ডিএসসিসির ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে। কাউন্সিলরের এমন কার্যকলাপের কারণে কেন তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে না, তার জবাব দিতে বলা হয়েছে। নোটিশ পাওয়ার সাত কার্যদিবসের মধ্যে মেয়রের কাছে জবাব দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পূর্বঘোষণা অনুযায়ী গুলিস্তানের সুন্দরবন স্কয়ার সুপার মার্কেটে নকশাবহির্ভূত দোকান উচ্ছেদে অভিযান শুরু করে ডিএসসিসি। অভিযান শুরুর পর ব্যবসায়ীরা কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে মেয়রের নাম ভাঙিয়ে টাকা নেওয়ার অভিযোগ করেন।

এ সময় বাংলাদেশ ইলেক্সটিক্স অ্যাসোসিয়েশনের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি আলিমুজ্জামান আলমসহ কয়েকজন অভিযোগ করেন, বর্তমান মেয়র দায়িত্ব নেওয়ার পর তাঁর নাম করে কাউন্সিলর রতন অবৈধভাবে ভবন নির্মাণ করে টাকা নিয়ে যাচ্ছেন। তাঁরা এভাবে টাকা নেওয়া বন্ধ করার আহ্বান জানান। এর আগে সাবেক মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকনের নামেও কাউন্সিলর রতন অবৈধ দোকান বৈধ করার কথা বলে টাকা নিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন তাঁরা। সাবেক মেয়র সাঈদ খোকনের ম্যাজিকও বেরহচ্ছে।

এসব অভিযোগ বিষয়ে জানতে চাইলে কাউন্সিলর ফরিদ উদ্দিন বলেন, তিনি জনপ্রতিনিধি। মার্কেট দেখভালের দায়িত্ব তাঁকে দেওয়া হয়নি। ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে টাকা তোলার অভিযোগ মিথ্যা। তাঁর দাবি, নকশাবহির্ভূত দোকান উচ্ছেদের ব্যাপারে সব সময় তাঁর তৎপরতা ছিল।

বিজ্ঞাপন

এ জাতীয় আরো খবর