1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : shaker :
  4. [email protected] : shamim :
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ১০:০৭ পূর্বাহ্ন

কোরআন অবমাননার প্রমাণ মেলেনি তদন্তে

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২০
  • ৭৮ বার পড়া হয়েছে

লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারীতে আবু ইউনুছ মো. সহিদুন্নবী জুয়েলকে পিটিয়ে ও পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় জেলা প্রশাসকের গঠিত তদন্ত কমিটি তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার জেলা প্রশাসক মো. আবু জাফরের হাতে প্রতিবেদনটি তুলে দেওয়া হয়। পরে তিনি সাংবাদিকদের জানান, তদন্ত কমিটি কোরআন বা ধর্ম অবমাননার কোনো প্রমাণ পায়নি। নিছক গুজব ছড়িয়ে জুয়েলকে হত্যাসহ হামলা ও ভাঙচুর করা হয়েছিল। প্রতিবেদনটি মন্ত্রিপরিষদ সচিবালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোতে পাঠানো হবে।

গত ২৯ অক্টোবর বুড়িমারী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ থেকে সৃষ্ট গুজবে জুয়েলকে হত্যার পরের দিন লালমনিরহাটের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট টি এম এ মোমিনকে প্রধান করে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল। কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রবিউল ইসলাম ও জেলা ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপপরিচালক সাহিদুল ইসলাম। তিন কার্যদিবসের মধ্যে কমিটিকে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছিল। পরে দুই দফা সময় বাড়িয়ে ৯ কার্যদিবসে তদন্ত প্রতিবেদন প্রস্তুত করে গতকাল জমা দেওয়া হলো।

তদন্ত কমিটি সূত্র জানায়, তদন্তের প্রয়োজনে কমিটি সাতটি সভায় মিলিত হয়ে সংগৃহীত তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ শেষে ছয় পাতার মূল তদন্ত প্রতিবেদনে ৭৩ পাতা সংযুক্ত করেছে। প্রতিবেদনে ৪২টি অনুচ্ছেদ রয়েছে। এতে ঘটনার ভূমিকা, বিবরণ, অধিকতর তথ্যানুসন্ধান, গভীর পর্যবেক্ষণ, সুপারিশ ও মন্তব্য আছে।

কোরআন বা ধর্ম অবমাননার বিষয়ে কোনো তথ্য-প্রমাণ পাওয়া যায়নি উল্লেখ করে জেলা প্রশাসক মো. আবু জাফর বলেন, ‘তদন্ত প্রতিবেদনে পুরো ঘটনা তুলে আনা হয়েছে। কিন্তু এখনই প্রতিবেদন সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু জানানো যাচ্ছে না। নিছক কোরআন অবমাননার গুজব ছড়িয়ে একজন নিরপরাধ ব্যক্তিকে পিটিয়ে ও পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে।’

তদন্ত কমিটির প্রধান টি এম এ মোমিন বলেন, ‘আমরা ঘটনার সময়কার ১৮ থেকে ২০টি ভিডিও ক্লিপ সংগ্রহ করে পর্যালোচনা করেছি। পাশাপাশি প্রকাশ্যে ও গোপনে ৫০ জনের সাক্ষ্য নিয়েছি।’

কমিটির সদস্য সাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘তদন্তে প্রকৃত ঘটনা তুলে আনার চেষ্টা করা হয়েছে। তদন্তে আমরা অনেক কিছুই পেয়েছি। কিন্তু মামলার তদন্ত চলায় প্রতিবেদন সম্পর্কে আমাদের কোনো মন্তব্য করা সম্ভব নয়।’

বিজ্ঞাপন

এ জাতীয় আরো খবর