1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : shaker :
  4. [email protected] : shamim :
শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:২৭ অপরাহ্ন

জাল ভিসায় অবাধ যাতায়াত

আজকের পত্রিকা
  • আপডেট সময় শনিবার, ২ জুলাই, ২০২২
  • ১৬ বার পড়া হয়েছে

গন্তব্য ইতালি। টার্কিশ এয়ারলাইনসের ফ্লাইটে মাদারীপুরের সামিউল হোসেন পৌঁছালেন ইস্তাম্বুল, ২০২১ সালের ২৭ জানুয়ারি। এরপর শুরু হয় বিপত্তি। ইস্তাম্বুল বিমানবন্দরে ধরা পড়ে, যে ভিসায় তিনি ভ্রমণ করছিলেন, তা জাল। দুই দিন পর তাঁকে দেশে ফেরত পাঠায় তুরস্ক কর্তৃপক্ষ। তিনি চলে যান বাড়ি। দিন তিনেক পর এয়ারলাইনস তাঁর পাসপোর্ট ও ফেরত পাঠানোর চিঠি হস্তান্তর করে ঢাকা ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে।

নিয়মানুযায়ী পাসপোর্ট ও ফেরত চিঠির সঙ্গে ফেরত আসা যাত্রীকেও পুলিশের কাছে হস্তান্তর করার কথা এয়ারলাইনসের। তবে সামিউলের ক্ষেত্রে ব্যত্যয় ঘটেছে। বিষয়টি স্বীকার করে টার্কিশ এয়ারলাইনসের ঢাকা বিমানবন্দর ডেস্কের কর্মকর্তা জাফর ইমাম বলেন, ফেরত যাত্রীকে নিয়ম মেনে কাগজপত্রসহ সব সময় পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়ে থাকে। ফ্লাইট নামার পরপরই এই যাত্রীকে ট্রানজিট এলাকায় রাখা হয়েছিল। কিন্তু পরে তাঁকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। এরপর পাসপোর্ট ও চিঠি পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে বলা হয় যাত্রী নিখোঁজ। পাসপোর্ট ছাড়া কী করে সে বিমানবন্দর থেকে বেরিয়ে গেল—প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ‘এটা আমারও প্রশ্ন। সম্ভবত এখানে কোনো চক্র কাজ করে।’

জাল ভিসা নিয়ে কীভাবে সামিউল ইমিগ্রেশন পার হলেন, জানতে চাইলে এসবির ইমিগ্রেশন শাখার বিশেষ পুলিশ সুপার মো. শাহরিয়ার আলম বলেন, অনেকে সঠিক ভিসা নিয়ে প্রথমে এক দেশে যায়। এরপর পকেট থেকে জাল ভিসা বের করে নির্দিষ্ট গন্তব্যে প্রবেশের চেষ্টা করে।

সামিউল, ২৬, অবিবাহিত। কিন্তু পাসপোর্টে বলা আছে তিনি বিবাহিত। দেশে ফেরার সপ্তাহখানেক পর পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) সামিউলকে গ্রেপ্তার করে মাদারীপুর থেকে। তাঁর কাছ থেকে জব্দ করা হয় ইতালিতে কাজের জন্য ইস্যু করা একটি বিএমইটি কার্ড, নম্বর ৮৪৬ এবং সে দেশে স্ত্রীর সঙ্গে বসবাসের জন্য ইস্যু করা ছাড়পত্র।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, সামিউল ঢাকা ছেড়ে যাওয়ার আগেই ব্যবস্থা করে রাখা হয়েছিল বাংলাদেশ ও তুরস্কের ইমিগ্রেশনে, সুনির্দিষ্ট ডেস্কে। কিন্তু ফ্লাইট ঢাকা ছাড়তে বিলম্ব হওয়ায় ইস্তাম্বুল পৌঁছাতে দেরি হয়ে যায়। এ অবস্থায় সেখানকার ইমিগ্রেশনে নির্দিষ্ট কর্মকর্তার পরিবর্তে অন্য কর্মকর্তার মুখোমুখি হতে হয় সামিউলকে। সেখানেই ধরা পড়ে ভিসা জাল।

ভিসা সঠিক কি না, তা যাচাইয়ের জন্য ২০২১ সালের ১৫ নভেম্বর ঢাকার ইতালি দূতাবাসকে চিঠি দেন সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার মো. খালিদুল হক হাওলাদার। মানব পাচার প্রতিরোধে সহযোগিতা চেয়ে এ চিঠিটি দেওয়া হয়। দূতাবাস জানায়, সামিউলের পাসপোর্টে ইতালির যে ভিসা রয়েছে, তা জাল।

সিআইডির মানব পাচার নিয়ে কাজ করেন, এমন একাধিক কর্মকর্তা জানান, মানব পাচার চক্রে পুলিশের কর্মকর্তা থেকে শুরু করে বিভিন্ন দেশের সরকারি কর্মকর্তারা জড়িত। এসব চক্রের কোনো একটি ঢাকা থেকে সামিউলকে বের করে নিয়ে যায়।

সিআইডির জিজ্ঞাসাবাদে সামিউল নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছেন। কিন্তু পুলিশের একটি অংশ তা মানতে নারাজ। পুলিশের দ্বিতীয় অংশটি বলছে, সামিউল পরিবারের জ্ঞাতসারেই সাড়ে ১২ লাখ টাকা চুক্তিতে ইতালিতে যেতে দেশ ছাড়েন। আর জাল ভিসায় ভ্রমণের বিষয়টি তিনি আগেই জানতেন।

গত বছর ১ ফেব্রুয়ারি সামিউলকে ১ নম্বর আসামি করে বিমানবন্দর থানায় এজাহার দায়ের করেন হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ইমিগ্রেশন পুলিশের পরিদর্শক সাজ্জাদ হোসেন। এতে ২ নম্বর আসামি করা হয় অজ্ঞাতনামা মানব পাচারকারী চক্রকে। তবে তাঁকে বাদ দিয়ে মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রস্তুত করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির উপপরিদর্শক মো. রাশেদুজ্জামান বলেন, সামিউল মূলত ভুক্তভোগী। পাচারের শিকার হয়েছেন। তাই তাঁকে আসামির তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। আর যিনি পাচারকারী ছিলেন মাদারীপুরের সামিউলের গ্রামের মো. কে ওবায়দুল করিম, তিনি করোনায় মারা গেছেন। এ ছাড়া বিমানবন্দর ইমিগ্রেশন পুলিশ এজাহারে কিছু ভুল করেছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

রাশেদুজ্জামান আরও বলেন, জাল ভিসা নিয়ে ঢাকার ইমিগ্রেশন কীভাবে পার হলেন সামিউল, তা তিনি এসবির কাছে জানতে চেয়েছিলেন। তারা আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়েছে যে, সেদিন দায়িত্বে নতুন কর্মকর্তা ছিলেন। ভুল করে ফেলেছেন। ঢাকার ইমিগ্রেশনে মাঝে মাঝে চাপ থাকলে সব ভিসা দেখার সময় হয় না। এ ক্ষেত্রে ইমিগ্রেশন পুলিশের সেই সদস্যকে আসামি করা হবে কি না? এর উত্তরে তিনি বলেন, ইমিগ্রেশন পুলিশের উপপরিদর্শক আরিফুল ইসলামকে আসামি করা হবে না। তাঁকে এসপিবিএনে শাস্তিস্বরূপ বদলি করা হয়েছে।

বাংলাদেশে থাকা পশ্চিমা দূতাবাসগুলোতে ভিসা সঠিক কি না, জানতে চেয়ে প্রায়ই চিঠি দেওয়া হয়। এ ক্ষেত্রে ভুল কি বারবারই হয়? জবাবে রাশেদুজ্জামান বলেন, ‘প্রশ্নটি সঠিক। আসলে ইমিগ্রেশনের দিকেই আঙুল যায়।’

‘ভুক্তভোগী’ সামিউল বলেন, অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে তিনি জামিন নিয়েছেন। তারপরও প্রতি মাসে হাজিরা দিতে যেতে হয়।

জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআরের তথ্য অনুযায়ী, ইতালিতে অবৈধভাবে প্রবেশের প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। শুধু করোনার মধ্যেই অবৈধভাবে গেছেন ৫ হাজার ৮০ জন বাংলাদেশি।

বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তারা বলছেন, বাংলাদেশ থেকে শত শত মানুষ বৈধ ভ্রমণ ভিসায় প্রথমে দুবাই, কাঠমান্ডু, দিল্লি, বালি (ইন্দোনেশিয়া), ইস্তাম্বুল (তুরস্ক), সিঙ্গাপুরসহ বিভিন্ন স্থানে যায়। সেখান থেকে নিজ নিজ রুট অনুযায়ী তাঁরা লিবিয়া, আলজেরিয়া, মরক্কো, তুরস্ক ও সাইপ্রাস হয়ে ইউরোপে এবং মেক্সিকো হয়ে আমেরিকা প্রবেশের চেষ্টা করে। এদের কেউ কেউ বালি হয়ে অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার সুযোগ নেয়।

ভাগ্যান্বেষণে বেরোনো এসব ব্যক্তির বেশির ভাগ তরুণ, যাঁরা ঝঞ্ঝাসংকুল সমুদ্রপথে নৌকাযোগে এবং দুর্গম পথে দিনের পর দিন মাইলের পর মাইল হেঁটে ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়া ও আমেরিকা পৌঁছানোর চেষ্টা করে।

পাচারের শিকার ব্যক্তিদের মধ্যে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক নারী। যাঁদের মূলত শ্রমিক হিসেবে সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতসহ পশ্চিম এশিয়ার দেশগুলোয়, মালদ্বীপ, এমনকি ভারতেও পাঠানো হয়।

ভ্রমণ ভিসায় দুবাই গিয়ে থেকে যাওয়া, কাজের চেষ্টা করা এবং সেখান থেকে তৃতীয় দেশে যাওয়ার চেষ্টা অব্যাহত থাকায় সংযুক্ত আরব আমিরাত একসময় বাংলাদেশের নাগরিকদের এ ধরনের ভিসা দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছিল। আবুধাবি ও দুবাইয়ে বাংলাদেশ দূতাবাসে কর্মরত দুই কূটনীতিক বলেছেন, এই দুই নগরের অনেক পার্কে বহু বাংলাদেশিকে কম্বল মুড়ি দিয়ে ঘুমাতে দেখা যায়। এদের বেশির ভাগ তৃতীয় দেশে যাওয়ার উদ্দেশ্যে সেখানে পৌঁছেছেন। এ অবস্থা চলতে থাকলে সংযুক্ত আরব আমিরাতে আবারও ভ্রমণ ভিসা বন্ধের ঝুঁকি আছে বলে তাঁরা মনে করেন।

পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেছেন, অবৈধ উপায়ে যারাই বিদেশে যাবে কিংবা যাওয়ার পর অনিয়মিত হয়ে পড়বে, তাঁদের দেশে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে সরকার কঠোর। এর সঙ্গে দেশের মর্যাদা এবং শ্রমিকসহ সব পেশার যাঁরা বৈধভাবে বিদেশে যান এবং থাকেন, তাঁদের সম্মানজনক অবস্থানের বিষয়টিও জড়িত।

বিজ্ঞাপন

এ জাতীয় আরো খবর