1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : shaker :
  4. [email protected] : shamim :
বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ১২:২৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টানা দ্বিতীয় জয় ,৫ উইকেট বাংলাদেশের চিত্রনায়িকা পরীমনি আটক, বিপুল পরিমাণ মাদক জব্দ বনানীর পরীমনির ফ্ল্যাটে ঢুকে তাজ্জব র‌্যাব,বাসা নয় যেন ‘মদের বার’ মধ্যরাতে মদারু স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার মাতলামি র‌্যাবের অভিযানে বিপুল পরিমান বিদেশী মদসহ পরীমনি ‘আটক’ বিয়ে করেছেন ১১টা, বিপুল টাকা হাতিয়েছেন মৌ সাবেক স্বামীদের থেকে সাংবাদিকতার নামে কী হচ্ছে, দেখেন না: দুদক আইনজীবীকে হাইকোর্ট বাবুলের ‘প্রেমিকা’ গায়ত্রীর গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে ইউএনএইচসিআর কথিত মডেলদের নাইট পার্টিতে ধনীর দুলালরা টিকা ছাড়া বাইরে বের হলে শাস্তির খবর সঠিক নয় : স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়

দুধ, মাঘন ও ঘি-তে বাড়বে বাচ্চার ওজন

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় বুধবার, ২২ এপ্রিল, ২০২০
  • ৮০ বার পড়া হয়েছে

সঠিক ওজনের সুস্থ্য শিশু সব বাবা মায়েদের কাম্য। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় বাচ্চার ওজন ঠিকমত বাড়ছে না। আর এই সমস্যাটা বেশি দেখা যায় বাচ্চার বয়স ছয় মাস হবার পর থেকে। তখন শুধু দুধে বাচ্চাদের পেট ভরে না, আবার নতুন ধরণের সলিড খাবারে তারা ঠিকমত অভ্যস্ত হতে পারে না। ফলাফল ওজন কমে যাওয়া। এসময় বাচ্চাদের এমন খাবার খাওয়ানো উচিত যা বাচ্চার ওজন বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। বাচ্চার ওজন বৃদ্ধিতে দুধ, মাখন ও ঘি বেশ উপকারী। বিস্তারিত জানুনঃ

১. বাচ্চার ওজন বৃদ্ধিতে দুধ

যেকোন বাচ্চার জন্য বুকের দুধের উপর কোন খাবার নেই। দুই বছর বয়স না হওয়া পর্যন্ত বাচ্চাকে বুকের দুধ খাওয়ানো বন্ধ করবেন না। সেই সাথে তাকে বিভিন্নভাবে অন্য খাবারের সাথে ফর্মুলা মিল্ক দেয়ার ব্যবস্থা করুন। যেমন ফর্মুলা মিল্ক দিয়ে বিভিন্ন ফলের পায়েস বা ওটস রান্না করে দিতে পারেন। তবে ১ বছর বয়স না হলে কখনোই গরুর দুধ দিবেন না এবং ফর্মুলা দুধ খাওয়াতে হলে একজন শিশু বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী খাওয়াতে হবে।

২. মাখন ও ঘি

বাচ্চার ওজন বাড়াতে চাইলে তার খাবারে অল্প অল্প করে মাখন অথবা ঘি যোগ করতে পারেন। যেমন গরম ভাতে একটু ঘি মেখে ডিম পোচ দিয়ে দিলেন। অথবা তার ডিমটা মাখনে পোচ করে দিলেন। কিংবা বাচ্চার পায়েস বানাবার সময় একটু ঘি যোগ করে দিলেন। এছাড়া বাচ্চার খিচুড়ি রান্না করার সময় তেলের বদলে ঘি ব্যবহার করতে পারেন। মাখনে ভাজা অমলেট দিতে পারেন, পাউরুটিতে মাখন আর সামান্য চিনি ছড়িয়ে দিতে পারেন, সুজিতে ঘি দিতে পারেন। বাচ্চার খাবারে মাখন আর ঘির মত মজার উপাদান যোগ করার জন্য আসলে অগণিত অপশন রয়েছে। শুধু একটু বুদ্ধি খরচ করে আর নিজের বাচ্চার রুচি বুঝে খাবার রেডি করলেই হল। তবে বাচ্চার খাবারে প্রথমে অল্প অল্প করে মাখন আর ঘি যোগ করে দেখবেন বাচ্চার হজম হচ্ছে কিনা। আর এক বছর বয়স হয়ে যাবার পরেই এই দুই উপাদান দেওয়া উচিত।

বিজ্ঞাপন

এ জাতীয় আরো খবর

বিজ্ঞাপন