1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : rubel :
  4. [email protected] : shaker :
  5. [email protected] : shamim :
মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১১:৫৮ পূর্বাহ্ন

নিবন্ধন হারানো জামায়াতের নির্বাচন নিয়ে জোর প্রস্তুতি

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১৬ বার পড়া হয়েছে

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে শীর্ষ নেতারা দণ্ডিত হওয়ার পর দীর্ঘদিন ধরে রাজনীতিতে কোণঠাসা জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশ। উচ্চ আদালতের রায়ে নিবন্ধন বাতিল হওয়ায় নির্বাচনের যোগ্যতাও হারিয়েছে দলটি। বিএনপির সঙ্গেও তৈরি হয়েছে দূরত্ব। সবকিছু মিলিয়ে ‘এক চলো’ নীতিতে হাঁটা জামায়াত হঠাৎ করে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে সরব হয়ে উঠেছে। কীভাবে অংশগ্রহণ করবে তা নিয়ে অনিশ্চয়তা থাকলেও নির্বাচন ঘিরে পরিকল্পনা-প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন দলটির নেতারা। এর অংশ হিসেবে রংপুর বিভাগের ৩১টি আসনের মধ্যে ২৫টিতে সম্ভাব্য প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে জামায়াত।

দিনাজপুর জেলা জামায়াতের একটি সূত্র জানিয়েছে, দলের উচ্চ পর্যায় থেকে সম্ভাব্য প্রার্থী ঘোষণা করে তাঁদের মাঠে ময়দানে কাজ করার দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আপাতত কোনো জোট নয়, স্বতন্ত্রভাবে তারা কাজ করবে। সূত্রটি আরও জানায়, উন্মুক্তভাবে দলীয় কার্যক্রম চালানো সম্ভব না হওয়ায় দলটি গোপনে কাজ অব্যাহত রেখেছে। বিশেষ করে দলের ছাত্রসংগঠন ইসলামী ছাত্রশিবিরের নেতা-কর্মীরা ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বেশ সক্রিয়। দলের অধিকাংশ সভা ও বৈঠক অনলাইন প্ল্যাটফর্ম হোয়াটসঅ্যাপ, জুম, গুগলমিট ইত্যাদি মাধ্যমে পরিচালিত হচ্ছে। পাশাপাশি দলের নেতারা সামাজিক অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার মাধ্যমে নিজেদের উপস্থিতি জানান দেওয়ার চেষ্টা করছেন।

২০০১ সালের নির্বাচনে জামায়াত রংপুর বিভাগের আটটি জেলার মধ্যে দিনাজপুরে দুটি, নীলফামারীতে একটি ও গাইবান্ধায় একটি আসন লাভ করে। এ অঞ্চলে ব্যাপক জনসমর্থন রয়েছে ধরে নিয়ে আগামী সংসদ নির্বাচনে আরও বেশি আসনে জয়লাভ করতে চায় দলটি। এ লক্ষ্যে তারা দিনাজপুরের পাশাপাশি রংপুর বিভাগের ৮টি জেলায় ৩১টি আসনের মধ্যে দিনাজপুরের ৬টি আসনের ৬টিতে, ঠাকুরগাঁওয়ের ৩টি আসনের ৩টিতে, পঞ্চগড়ের ২টি আসনের ২টিতে, নীলফামারীর ৪টি আসনের ৪টিতে, রংপুরের ৬টি আসনের মধ্যে ৩টিতে, কুড়িগ্রামের ৪টির মধ্যে ২টিতে, গাইবান্ধার ৫টির মধ্যে ৩টিতে এবং লালমনিরহাটের ৩টির মধ্যে ২টিসহ মোট ২৫টি আসনে নির্বাচনের লক্ষ্যে ইতিমধ্যে প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে।

এ বিষয়ে দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও এবং নীলফামারী জেলা জামায়াতের একাধিক নেতা জানান, ৯ সেপ্টেম্বর দিনাজপুর জেলা কর্ম পরিষদ সভায় দিনাজপুর জেলার ৬টি আসনের প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেন দলের অ্যাসিসট্যান্ট সেক্রেটারি জেনারেল ও রংপুর-দিনাজপুর অঞ্চল পরিচালক মাওলানা আব্দুল হালিম। সভায় দিনাজপুর জেলা আমির অধ্যক্ষ আনিসুর রহমানসহ অন্যান্য নেতা উপস্থিত ছিলেন। সভায় সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসনে মাওলানা খোদা বকস্, দিনাজপুর-২ (বিরল-বোচাগঞ্জ) আসনে বিরল উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মাওলানা এ কে এম আফজালুল আনাম, দিনাজপুর-৩ (সদর) আসনে দিনাজপুর বারের সাবেক ধর্ম ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাঈনুল আলম, দিনাজপুর-৪ (চিরিরবন্দর-খানসামা) আসনে চিরিরবন্দরের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ আফতাব উদ্দীন মোল্লা, দিনাজপুর-৫ (পার্বতীপুর-ফুলবাড়ী) আসনে পার্বতীপুর উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মো. আনোয়ার হোসেন এবং দিনাজপুর-৬ (বিরামপুর-হাকিমপুর-নবাবগঞ্জ-ঘোড়াঘাট) আসনে দিনাজপুর জেলা (দক্ষিণ) জামায়াতের আমির মো. আনোয়ারুল ইসলামের নাম ঘোষণা করা হয়েছে।

এদিকে নীলফামারীতেও কয়েকটি আসনে সম্ভাব্য প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেছেন দলের শীর্ষ নেতারা। এর মধ্যে নীলফামারী-১ (ডোমার-ডিমলা) আসনে দলের জেলা সেক্রেটারি অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুস সাত্তার, নীলফামারী-২ (নীলফামারী সদর) আসনে দলের জেলা নায়েবে আমির ড. মো. খায়রুল আনাম, নীলফামারী-৩ (জলঢাকা) আসনে উপজেলা জামায়াতের আমির অধ্যাপক ছাদের হোসেন ও নীলফামারী-৪ (সৈয়দপুর-কিশোরগঞ্জ) আসনে দলের সৈয়দপুর উপজেলা আমির হাফেজ আব্দুল মুনতাকিম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বলে জানা গেছে।

নির্বাচনের বিষয়ে জানতে চাইলে জামায়াতের সৈয়দপুর উপজেলা শাখার আমির হাফেজ আব্দুল মুনতাকিম বলেন, নির্বাচন কমিশন (ইসি) কর্তৃক যেহেতু দলের নিবন্ধন বাতিল করা হয়েছে, তাই স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচন করার প্রস্তুতি নিয়েছে জেলা শাখা। তবে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়ে কেন্দ্রীয় কমিটির দেওয়া সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হিসেবে গণ্য করা হবে।

জামায়াতের নির্বাচনী প্রস্তুতির বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) থেকে চারবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য মনোরঞ্জনশীল গোপাল আজকের পত্রিকাকে বলেন, নিবন্ধন না থাকায় দল হিসেবে জামায়াতে ইসলামীর নির্বাচনে আসার সুযোগ নেই। আর যাঁরা যুদ্ধাপরাধী, রাজাকার, আলবদর, তাঁরা যে নামেই নির্বাচনে আসুন না কেন, জনগণ তাঁদের ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করবেন।

বিজ্ঞাপন

এ জাতীয় আরো খবর