1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : shaker :
  4. [email protected] : shamim :
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:২৬ অপরাহ্ন

পরীমণির বাসায় যারা যেত তাদের তালিকা করছে র‌্যাব

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৬ আগস্ট, ২০২১
  • ২৪ বার পড়া হয়েছে

স্কুল-কলেজে পড়ালেখার সময় নাম ছিল শামসুন নাহার স্মৃতি। বাবা মনিরুল ইসলাম ছিলেন পুলিশের কনস্টেবল। একসময় তারা থাকতেন পিরোজপুরের ভাণ্ডারিয়ায়। বাবার চাকরির সুবাদে চলে আসেন নড়াইলে।

দেখতেও খুব সুন্দর ছিলেন স্মৃতি। অভাব অনটনের কারণে উচ্চ মাধ্যমিকের গণ্ডি পেরোতে পারেননি। বাবা-মা মারা গেলে নানার কাছে বেড়ে উঠতে থাকেন স্মৃতি। নানার হাত ধরেই ২০১১ সালে চলে আসেন ঢাকার সাভারে। এরপর পা রাখেন ঢাকায়। রাজধানীতে এসেই নাম পরিবর্তন করে পরীমণি নামে নতুন পরিচয় ধারণ করেন। কয়েক মাস টেলিভিশনের নাটক ও বিজ্ঞাপনচিত্রে কাজ করেন। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৪ সালের প্রথমদিকে পরীমণির সঙ্গে পরিচয় হয় প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজের। তিনি পরীকে চলচ্চিত্র জগতে কাজ করার প্রস্তাব দিলে কোনো আপত্তি জানাননি তার নানা।

একপর্যায়ে পরীমণি ও রাজের সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্বে রূপ নেয়। রাজের পরিচালনায় ‘ভালোবাসা সীমাহীন’ নামে একটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন পরীমণি। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। সিনেমায় কাজ শুরুর পর নাটকীয়ভাবে বদলে যায় তার জীবনযাত্রা। রাতারাতি বনে যান অগাধ টাকার মালিক। হাঁকিয়ে বেড়াতে থাকেন দামি গাড়ি। অল্প দিনেই যেন হাতে পান আলাদিনের চেরাগ। চার বছরের মাথায় ফ্ল্যাট-গাড়ি থেকে শুরু করে এমন কিছু নেই যে, তার অভাব আছে। পরীমণির বিষয়ে তদন্তসংশ্লিষ্ট একাধিক র‌্যাব ও পুলিশ কর্মকর্তা দেশ রূপান্তরকে এসব তথ্য জানিয়েছেন। অল্প সময়ে পরীমণির এই উত্থানপর্ব নিয়ে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার কর্মকর্তারাও বিস্ময় প্রকাশ করেছেন।

সাত প্রভাবশালীকে খুঁজছে পুলিশ : তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানান, গ্রেপ্তারের পর গত বুধবার রাতভর পরীমণি ও রাজকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তারা বিভিন্ন তথ্য দিয়েছেন। পাশাপাশি বেশ কয়েকজন আলোচিত ব্যক্তির নামও প্রকাশ করেছেন। যারা নিয়মিত পরীমণির বাসায় আসা-যাওয়া করতেন। তারা দেশের বাইরেও নিয়ে যেতেন পরীমণিকে। ওইসব ব্যক্তির মধ্যে একজন তুহিন সিদ্দিকী অমি এখন কারাবন্দি। এর বাইরে আরও সাত প্রভাবশালীকে খুঁজছে পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যরা। বোট ক্লাবের ঘটনার পর থেকেই পরীমণিকে নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছিল। রাজ ও পরী সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে অনেকের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগও আছে।

যেভাবে লাইমলাইটে আসেন পরীমণি : পুলিশ ও র‌্যাবের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে, ১৯৯২ সালের ২৪ অক্টোবর সাতক্ষীরায় জন্ম পরীমণির। ২০০৭ সালে পরীমণির মা আগুনে দগ্ধ হয়ে মারা যান। তার মৃত্যুর ঘটনা ছিল রহস্যাবৃত। ২০১২ সালে সিলেটে তার বাবার গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার হয়। ছোটবেলা থেকেই নায়িকা হওয়ার স্বপ্ন দেখতেন পরীমণি। ২০১১ সাল থেকে শুরু হয় তার স্বপ্নপূরণের মিশন। বুলবুল একাডেমি অব ফাইন আর্টসে (বাফা) নাচ শিখতে ভর্তি হন। নাচ করতেন বিভিন্ন অনুষ্ঠানে। একসময় সুযোগ পান টিভি নাটকে অভিনয়ের। ‘সেকেন্ড ইনিংস’, ‘এক্সক্লুসিভ’, ‘এক্সট্রা ব্যাচেলর’ নামের নাটকগুলোতে দেখা গেছে তাকে। ‘নারী ও নবনীতা তোমার জন্য’ নামে একটি নাটকে নায়িকা চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পান ২০১৪ সালে। ওই সময়ই পরিচয় রাজের সঙ্গে। রাজই তাকে সিনেমায় নায়িকা চরিত্রে অভিনয়ের স্বপ্ন দেখাতে শুরু করেন। এরপর থেকেই সবসময় রাজের সঙ্গী ছিলেন পরীমণি। ২০১৫ সালে সিনেমায় নায়িকা চরিত্রে অভিনয়ের স্বপ্নপূরণ হয় তার। ওই সময় নজরুল ইসলাম খানের পরিচালনায় ‘রানা প্লাজা’ নামে একটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। কিন্তু চলচ্চিত্রটি মুক্তি পায়নি। পরে রাজই প্রযোজক হয়ে শাহ আলম মণ্ডলের পরিচালনায় নির্মাণ করেন ‘ভালোবাসা সীমাহীন’ নামে একটি চলচ্চিত্র। এতে নায়ক চরিত্রে অভিনয় করেন জায়েদ খান। এটিই পরীর মুক্তিপ্রাপ্ত প্রথম সিনেমা। এই চলচ্চিত্রটি মুক্তির পর তার সঙ্গে ১৯টি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য চুক্তিবদ্ধ হন পরীমণি। তারপর থেকেই শুরু হয় তার বেপরোয়া জীবনযাত্রা। বেশিরভাগ সময় রাজের সঙ্গে একই ফ্ল্যাটে থাকতেন। সেই ফ্ল্যাটে প্রভাবশালীদের ছিল অবাধ যাতায়াত। রাজের সঙ্গে পরীমণির বিয়ে না হলেও স্বামীর মতোই তার সঙ্গে চলাফেরা করতেন বলে পুলিশ ও র‌্যাব কর্মকর্তারা নিশ্চিত হয়েছেন। পরীমণি তিনটি বিয়ে করলেও একটিও টেকেনি। ২০১৯ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি তামিম হাসানের সঙ্গে বিয়ে হলেও সেই সম্পর্ক বেশিদিন টেকেনি। ২০২০ সালের ৯ মার্চ পরিচালক কামরুজ্জামান রনিকে ৩ টাকার দেনমোহরে বিয়ে করেন। কয়েক মাস সংসার করার পর তার সঙ্গেও বিচ্ছেদ ঘটে। ২০১৬ সালে ৩১ জানুয়ারি ইসমাইল নামে আরেকজনকে বিয়ে করলেও তার সঙ্গে সংসার করা হয়নি। ২০১৭ সালে ঈদুল আজহাতে এফডিসিতে তিনটি গরু জবাই করে আলোচনায় আসেন পরী। চলতি বছরও তিনি ছয়টি পশু কোরবানি দিয়েছেন। তাছাড়া বোট ক্লাবে তাকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ এনে আবারও আলোচনায় আসেন। অল কমিউনিটি ক্লাবে ভাঙচুরের ঘটনার দিনও তার সঙ্গে আগের স্বামী তামিমের উপস্থিতি ছিল। গত বছর এশিয়ার ১০০ ডিজিটাল তারকার একটি তালিকা প্রকাশ করে যুক্তরাষ্ট্রের প্রখ্যাত বিজনেস ম্যাগাজিন ফোর্বস। যাতে জায়গা করে নেন পরীমণি। প্রভাবশালীদের মাধ্যমে দেনদরবার করায় ওই তালিকায় তার নাম উঠে বলে অভিযোগ আছে।

বিদেশ ভ্রমণপিয়াসী পরী : পুলিশ ও র‌্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলেন, পরীমণি অল্প সময়েই বিপুল অর্থসম্পদের মালিক হয়েছেন। বনানী, গুলশান ও উত্তরায় একাধিক ফ্ল্যাট রয়েছে তার। দুবাই, থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়ায় প্রায়ই যাতায়াত করতেন। আর এই কাজে তাকে বেশি সহায়তা করেছেন অমি। ওই কর্মকর্তারা আরও বলেন, উৎস অজানা থাকলেও বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করে তিনি পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বেড়াতে যেতেন। সর্বশেষ সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইতে তাকে দেখা গেছে একটি বিলাসবহুল প্রমোদতরী নিয়ে সাগরে ঘুরে বেড়াতে। ওই সময় তিনি বুর্জ আল খলিফার প্রেসিডেস্ট স্যুটে ছিলেন। তাছাড়া জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আজিজ মোহাম্মদ ভাইয়ের সঙ্গেও আছে তার ঘনিষ্ঠতা। তিনি পরীকে একটি বিএমডব্লিউ গাড়িও উপহার দেন। অভিনয় করাকালেই তার সঙ্গে প্রভাবশালীদের ঘনিষ্ঠতা তৈরি হয়। সর্বশেষ তার অভিনীত তৌকীর আহমেদ পরিচালিত ‘স্ফুলিঙ্গ’ চলচ্চিত্রটি মুক্তি পায়। চলচ্চিত্র প্রতি তার পারিশ্রমিক ৫ থেকে ৭ লাখ টাকা।

পরীমণির ব্যবহৃত ইলেকট্রনিক ডিভাইস উদ্ধার : র‌্যাব কর্মকর্তারা জানান, রাজের মাধ্যমেই অনেক ব্যবসায়ী ও শিল্পপতির সঙ্গে পরিচয় হয় পরীমণির। পরিচয়ের সূত্র ধরে তারা পরীর বাসায় আসা-যাওয়া করতেন। সম্পর্কের একপর্যায়ে তাদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিতেন পরী। তার এই কারবারে পরে যোগ দেন মিশু ও জিসান। তাদের মাধ্যমে বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের বিজ্ঞাপনের মডেল এবং চলচ্চিত্রের নায়িকা হিসেবে অভিনয়ের সুযোগ করে দেওয়ার নামে অতিথিদের মনোরঞ্জনে বাধ্য করা হতো। গোপন ক্যামেরায় আবার সেসব দৃশ্যের ভিডিওচিত্র সংরক্ষণ করে রেখে ওইসব ছাত্রীকে পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে যুক্ত করতে বাধ্য করা হতো বলে অভিযোগ রয়েছে। এ ধরনের একাধিক ফুটেজ পরীমণির ব্যবহৃত ইলেকট্রনিক ডিভাইস থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে পরীমণি তার চক্রের আরও বেশ কয়েকজনের নাম বলেছেন। তার মধ্যে ব্যবসায়ী, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কয়েকজন কর্মকর্তা, রাজনীতিবিদ, পরিচালক, প্রযোজক ও সাংবাদিক রয়েছেন। তবে তাদের ফাঁসানোর জন্য পরী এসব নাম বলেছেন কি না তাও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। পরীমণির বিশ্বস্ত সহযোগী কস্টিউম ডিজাইনার জিমি। তাকে সঙ্গে নিয়েই সবসময় চলাফেরা করেন। আবার তার মাধ্যমেও অনেকে যোগাযোগ করে পরীর সঙ্গে। বাসার পার্টি শেষে শিডিউল অনুযায়ী গভীর রাতে বিভিন্ন ক্লাবে ছুটে যান তারা। এরপর সেখান থেকে নির্ধারিত ব্যক্তির সঙ্গে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়াতেন। এজন্য মোটা অঙ্কের টাকাও নিতেন।

বোট ক্লাবে কী ঘটেছিল সেদিন : ঢাকা বোট ক্লাবে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার শিকার হওয়ার অভিযোগ এনে সম্প্রতি নাসির ইউ মাহমুদ নামে এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে সাভার থানায় মামলা করেন পরীমণি। এরপর ওই ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদে প্রকৃত সত্য জানা যায়। তদন্তসংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, ওই রাতে পূর্বপরিচিত অমির মাধ্যমে বোট ক্লাবে যান পরীমণি। সেখানে যাওয়ার পর অতিরিক্ত মদপানের একপর্যায়ে দামি মদের বোতল নিয়ে আসতে চান পরী। এতে বাধা হয়ে দাঁড়ান নাসির। সেখানে ভাঙচুরের একপর্যায়ে অসুস্থ হয়ে পড়লে পরীকে নিয়ে বেরিয়ে যান জিমি। এ ঘটনার পর সমঝোতার জন্য ওই ব্যবসায়ীর কাছে মোটা অঙ্কের টাকা চাওয়া হয়। না হলে তাকে ভোগান্তিতে পড়তে হবে বলে বিভিন্ন মারফত হুমকি দেওয়া হয়। এরই মধ্যে গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাব কর্র্তৃপক্ষ ভাঙচুরের অভিযোগ এনে পরীর নামে থানায় সাধারণ ডায়েরি করে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক র‌্যাবের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘পরীমণি ছাড়াও বেশ কয়েকজন মডেল-অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পাওয়া গেছে। র‌্যাবের গোয়েন্দা অনুসন্ধান চলমান আছে। দামি গাড়ি, কোটি টাকার ফ্ল্যাট, মূল্যবান অলঙ্কার সবকিছুই আছে পরীর। নির্দিষ্ট প্রভাবশালীদের ঘনিষ্ঠ হতেই বেশি পছন্দ করতেন তিনি। এছাড়া কয়েকটি ব্যাংকে পরীর মোটা অঙ্কের অর্থও জমা আছে। টাকার নেশা তাকে ছাড়েনি। ’

রাজনৈতিক নেতা পরিচয় দিতেন রাজ : নিজের গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জ হওয়ায় কখনো কখনো নিজেকে আওয়ামী লীগ নেতা বলে পরিচয় দিতেন রাজ। আবার কখনো দলটির শীর্ষপর্যায়ের এক নেতার পিএস পরিচয়ও দিতেন। প্রতারণা করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন রাজ। গ্রেপ্তারের পর র‌্যাব কর্মকর্তাদের কাছে নিজেই এসব তথ্য জানিয়েছেন তিনি। গোপালগঞ্জ নতুন রেলস্টেশনের পাশে পাঁচতলা একটি আবাসিক হোটেল ভবন নির্মাণ করছেন রাজ। তিনি ঠিকাদারিও করতেন। এ প্রসঙ্গে র‌্যাবের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘গত এক বছরে তার ১৪টি ব্যাংক হিসাবে ৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়েছে। পরীমণি ছাড়াও সেমিলিয়া ও কাকন নামে দুই তরুণী সার্বক্ষণিক তার সঙ্গে থাকে। তাদেরও ধরার চেষ্টা চলছে। ’ সূত্র: দেশ রুপান্তর

বিজ্ঞাপন

এ জাতীয় আরো খবর