1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : rubel :
  4. [email protected] : shaker :
  5. [email protected] : shamim :
শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:৩৪ পূর্বাহ্ন

প্যান্ডোরা পেপারস: বিশ্বনেতা ও রাজনীতিকদের কার কী সম্পদ

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ৫ অক্টোবর, ২০২১
  • ৭১ বার পড়া হয়েছে

২০১৬ সালে যখন পানামা পেপারস ঝড় তুলেছিল, তখন বলা হয়েছিল- এটি ‘গল্পের অর্ধেকটা’ মাত্র। যেন সেই অর্ধেক গল্পের ধারাবাহিকতায়ই রোববার এলো প্যান্ডোরা পেপারস; নেপথ্যে অনুসন্ধানী সাংবাদিকদের সেই সংগঠন ‘ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অব ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টস’ (আইসিআইজে)। ৯৫ হাজার অফশোর ফার্মের প্রায় ১ কোটি ২০ লাখ নথি নিয়ে সাড়ে ছয়শর বেশি সাংবাদিকের পরিশ্রমে খুলেছে এই প্যান্ডোরার বাক্স।

গ্রিক পুরাণ অনুযায়ী, ঈশ্বরের সৃষ্টি করা প্রথম মানবী ছিলেন প্যান্ডোরা। দেবতা জিউস তার এই কন্যাকে বিয়ের সময় একটি বাক্স উপহার দেন, যা প্যান্ডোরার বক্স নামে পরিচিত। জিউস তার কন্যাকে এই বাক্স খুলতে বারণ করেছিলেন, যদিও একটি চাবি দিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। বিয়ের পর প্যান্ডোরা কিছুতেই আর তার কৌতূহল দমন করতে পারেননি, চাবি দিয়ে খুলেই ফেলেছিলেন বাক্সটি। তারপরই বাক্সটি থেকে সব অশুভ শক্তি ঈর্ষা-ব্যাধি-ঘৃণা-জরা-শোক একের পর এক বের হতে থাকে। এবার গ্রিক উপকথায় বিশ্বের প্রথম মানবী প্যান্ডোরার বাক্সের মতোই একেক করে বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে বিশ্বের প্রভাবশালীদের গোপন সম্পদের খবর।

 

নথিগুলো নিয়ে বিবিসি, গার্ডিয়ানসহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের যৌথ অনুসন্ধান ‘বহু বাক্স খুলে দিচ্ছে’ বলে আইসিআইজে প্রতিবেদনের নাম দিয়েছে প্যান্ডোরা পেপারস। করস্বর্গ হিসেবে পরিচিত ব্রিটিশ ভার্জিন আইল্যান্ড, বেলাইজ, পানামা, সাইপ্রাসের পাশাপাশি সংযুক্ত আরব আমিরাত, সিঙ্গাপুর, সুইজারল্যান্ডসহ বিশের বিভিন্ন প্রান্তের ১৪টি আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে এসব তথ্য এসেছে। নথিতে মোট ৩৫ জন রাষ্ট্রনেতার তথ্য মিলেছে। তাদের মধ্যে কেউ এখনও পদে বহাল, কেউবা সাবেক। ৩০০ কর্মকর্তার মধ্যে রয়েছেন ৯০টির বেশি দেশের মন্ত্রী, বিচারক, মেয়র, মিলিটারি জেনারেল। যে একশ বিলিয়নিয়ারের তথ্য এসেছে তাদের মধ্যে রয়েছে ব্যবসায়ী নেতা, রক তারকা, বিনোদন জগতের তারকা।

কর ফাঁকি দিয়ে ভবনের মালিকানা নিয়েছিলেন ব্লে য়ার দম্পতি
টনি ব্লেয়ার ও তার স্ত্রী চেরি ব্লেয়ার ২০১৭ সালে লন্ডনের একটি ভবনের মালিকানা নেন। ভবনটির সে সময় মূল্য ছিল ৬৫ লাখ পাউন্ড। ভবনটির মালিকানা ছিল বাহরাইনের শিল্প, বাণিজ্য ও পর্যটনমন্ত্রী জায়েদ বিন রশিদ আলজায়ানির। লন্ডনের ভবনটি অফশোর কোম্পানির মাধ্যমে এটি কেনেন ব্লেয়ার দম্পতি। এতে তাদের ৩ লাখ ১২ হাজার পাউন্ড কর দিতে হয়নি। এ ধরনের লেনদেনে যুক্তরাজ্যে আইনি বৈধতা রয়েছে। আর কর না দেওয়ার উদ্দেশ্যে এই দম্পতি এমনটি করেছিল; এমন প্রমাণও মেলেনি। তবে সমালোচিত হচ্ছে এ বিষয়ে যুক্তরাজ্যের ট্যাক্স সংক্রান্ত আইনটি। বিশ্লেষকরা বলছেন, এমন আইনের কারণে যুক্তরাজ্যের বিত্তশালীরা কর না দেওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন।

ভবনটি কেনার বিষয়ে ‘অস্বাভাবিক’ কিছুই ছিল না বলে গার্ডিয়ানকে জানিয়েছেন চেরি বেøয়ার। এমনকি কোম্পানিটি কেনার আগে বিক্রেতার পরিচয়ও জানতেন না বলে দাবি করেছেন তিনি।

মোনাকোয় পুতিনের বান্ধবীর বিলাসবহুল ফ্ল্যাট
বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ধনী ব্যক্তিদের জন্য কর স্বর্গ হিসেবে পরিচিত দেশ মোনাকো। ২০০৩ সালে সেখানে ৩৬ লাখ ইউরোতে একটি অ্যাপার্টমেন্টের হাতবদল ঘটেছিল। স্থানীয় একটি নোটারির পক্ষ থেকে ওই চুক্তিতে সই করা হয়েছিল। ওই ফ্ল্যাট যিনি কিনেছিলেন, তার পরিচয় জানা ছিল না। কাগজপত্রে ফ্ল্যাট মালিক হিসেবে নাম ছিল একটি অফশোর কোম্পানির। এবার প্যান্ডোরা পেপারসে ওই ফ্ল্যাটমালিকের পরিচয় বেরিয়ে এসেছে। এসব নথি বিশ্লেষণকারী সংবাদ মাধ্যমগুলোর একটি গার্ডিয়ান বলছে, ওই ফ্ল্যাট মালিক একজন নারী। ২০০৩ সালে সভেতলানা ক্রিভোনোগিখ নামে ওই নারীর বয়স ছিল ২৮ বছর। ২০২০ সালে রাশিয়ার স্বাধীন অনুসন্ধানী ওয়েবসাইট প্রোইক্ট দাবি করে, পুতিন যখন সেন্ট পিটার্সবার্গের মেয়র ছিলেন তখনই তার সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়ে তোলেন ক্রিভোনোগিখ। তিনি পুতিনের প্রেমিকা ছিলেন বলেও কথিত আছে।

জর্ডানের বাদশার ১০ কোটি ডলারের গোপন সম্পদের খোঁজ
প্যান্ডোরা পেপারসে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ জর্ডানের বাদশা দ্বিতীয় আবদুল্লাহ বিন আল-হুসাইনের যুক্তরাজ্য এবং যুক্তরাষ্ট্রে গোপনে ১০ কোটি ডলারের সম্পদ গড়ে তোলার খোঁজও মিলেছে। ফাঁস হওয়া আর্থিক নথিতে দেখা গেছে, ১৯৯৯ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর জর্ডানের বাদশা দ্বিতীয় আবদুল্লাহ বিন আল-হুসাইন গোপনে মালিকানাধীন অফশোর কোম্পানিগুলোর একটি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে বিদেশে কমপক্ষে ১৫টি বাড়ি কিনেছেন। বাদশা আব্দুল্লাহর আইনজীবীরা অবশ্য বলেছেন, বাড়ি কেনার জন্য বাদশাহ তার ব্যক্তিগত সম্পদের ব্যবহার করেছেন। অফশোর কোম্পানির মাধ্যমে বাড়ি কেনায় অনৈতিক কিছুই হয়নি।

প্যান্ডোরা পেপারসে ইমরান খানের ঘনিষ্ঠরা, তদন্তের ঘোষণা
প্যান্ডোরা পেপারসে সাতশর বেশি পাকিস্তানি নাগরিকের নাম রয়েছে। তাদের মধ্যে দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের কয়েকজন মন্ত্রী ও তাদের পরিবারের সদস্যসহ বিরোধী অনেক রাজনীতিকের নামও রয়েছে। এসেছে কয়েকজন সামরিক কর্মকর্তার নামও। ডনের প্রতিবেদনে বলা হয়, ইমরান খান নিজে কোনো অফশোর কোম্পানির মালিক, এমন ইঙ্গিত প্রকাশিত কোনো নথিতে নেই। তবে তার সাবেক অর্থ ও রাজস্ব বিষয়ক উপদেষ্টা ওয়াকার মাসুদ খানের ছেলের নাম নথিতে আছে। পেপারসে নাম আসা পাকিস্তানিদের বিষয়ে যথাযথ তদন্তের ঘোষণা দিয়েছেন ইমরান খান।

আজারবাইজানের প্রেসিডেন্টের ১১ বছরের ছেলের ৩ কোটি পাউন্ডের সম্পদ
হায়দার আলিয়েভের বয়স ১১ বছর। সে আজারবাইজানের প্রেসিডেন্ট ইলহাম আলিয়েভের ছেলে। শিশু হায়দারের জন্য যুক্তরাজ্যের রাজধানী লন্ডনে কেনা হয়েছিল একটি ভবন, তবে গোপনে। ৩ কোটি ৩০ লাখ পাউন্ডের বিনিময়ে এই অফিস ভবনটি কেনা হয় অফশোর কোম্পানির মাধ্যমে

তালিকায় ভারতের ধনকুবের-ব্যবসায়ী-রাজনীতিবিদ
প্যান্ডোরা পেপারসে ভারতের প্রভাবশালী বেশ কয়েকজনের নামও এসেছে। তাদের মধ্যে রয়েছেন রিলায়েন্স কমিউনিকেশনের চেয়ারম্যান ও ধনকুবের অনিল আম্বানি, পলাতক হীরা ব্যবসায়ী নিরব মোদির বোন। এমনকি রাজনীতিবিদ, আইনবিষয়ক কর্মকর্তা ও সরকারি কর্মকর্তাও রয়েছেন এ তালিকায়। যুক্তরাজ্যের একটি আদালতে স¤প্রতি ভারতীয় ধনকুবের অনিল আম্বানিকে দেউলিয়া ঘোষণা করা হয়। তার সম্পর্কে পাওয়া চমকপ্রদ তথ্য বলছে, ১৮টি অফশোর কোম্পানির মালিকানা রয়েছে অনিলের।

কেনিয়ার প্রেসিডেন্ট ও তার পরিবারের গোপন সম্পদ
পূর্ব আফ্রিকার দেশ কেনিয়ার প্রেসিডেন্ট উহুরু কেনিয়াত্তা ও তার পরিবারের গোপন সম্পদের তথ্য ফাঁস হয়েছে। ফাঁস হওয়া নথিতে কেনিয়াত্তা ও তার পরিবারের ছয় সদস্যের ১৩টি অফশোর কোম্পানির সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে। তথ্যের ভিত্তিতে বিবিসি বলছে, অফশোর কোম্পানিতে কেনিয়াত্তার বিনিয়োগের মূল্য প্রায় ৩০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

রয়েছেন শাকিরা-টেন্ডুলকারও
প্যান্ডোরা পেপারসে উঠে এসেছে বিশ্ব খ্যাত কলম্বিয়ান শিল্পী শাকিরার নাম। তবে মিউজিক ডিভা শাকিরার আইনজীবীর দাবি, শাকিরা তার কোম্পানি থাকার কথা আগেই প্রকাশ করেছিলেন। তিনি কর সংক্রান্ত কোনো সুবিধা নেননি। ওই পেপারসে নাম এসেছে ভারতীয় ক্রিকেট কিংবদন্তি শচিন টেন্ডুলকার, স্ত্রী অঞ্জলি টেন্ডুলকার ও শ্বশুর আনন্দ মেহতারও। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এক প্রতিবেদনে সোমবার এ তথ্য জানানো হয়েছে। টেন্ডুলকারের নাম আসায় বিস্ময় প্রকাশ করে প্রতিক্রিয়ায় তার আইনজীবী বলেছেন, শচিন টেন্ডুলকারের বিদেশে বিনিয়োগ আছে। কিন্তু কোনো বিনিয়োগই গোপন নয়। সব বিনিয়োগই বৈধ ও আইনসিদ্ধ।

বিজ্ঞাপন

এ জাতীয় আরো খবর