1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : rubel :
  4. [email protected] : shaker :
  5. [email protected] : shamim :
শুক্রবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০৪:২৯ পূর্বাহ্ন

বিএমডব্লিউর মালিক পিয়াসাই, কাগজ না করায় বিভ্রান্তি

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১৩ আগস্ট, ২০২১
  • ৯৭ বার পড়া হয়েছে

কথিত মডেল ফারিয়া মাহবুব পিয়াসার কাছ থেকে জব্দ করা বিলাসবহুল গাড়ি দুটির মালিক তিনিই। এর মধ্যে বিএমডব্লিউ এস২০৯ মডেলের সিলভার রঙের গাড়িটি গত বছরের এপ্রিল মাসে আরেকজনের কাছ থেকে কেনেন তিনি। তবে পিয়াসা দীর্ঘদিনেও মালিকানা বদলের আবেদন না করায় বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) সার্ভারে পুরোনো মালিকের প্রতিষ্ঠানের নামই রয়ে গেছে।

আর এ কারণেই ছড়িয়েছে বিভ্রান্তি, সংবাদমাধ্যমের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকেও ঘুরপাক খেতে হয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে, বিএমডব্লিউ গাড়িটির মালিকানা পরিবর্তনের আবেদন করতে পিয়াসাকে বারবার অনুরোধ করা হলেও তিনি সাড়া দেননি। সবশেষ গত এপ্রিলে তিনি আবেদনটি করেন। তবে গাড়িটি গত মাসে বিআরটিএতে পিয়াসার নামে রেজিস্ট্রেশন করা হলেও লকডাউনের কারণে সার্ভার আপডেট করা সম্ভব হয়নি, বলছেন কর্মকর্তারা।

পিয়াসা গাড়ি কেনার পর এক বছরেও কেন মালিকানা পরিবর্তনের আবেদন করেননি, তা নিয়ে সন্দিহান বিআরটিএর কর্মকর্তাদের পাশাপাশি গাড়িটির আগের মালিকপক্ষও।

বিআরটিএর সার্ভারে পিয়াসার ব্যবহৃত বিএমডব্লিউ এস২০৯ মডেলের সিলভার রঙের গাড়িটির নিবন্ধন এখনও দ্য রিলায়েবল বিল্ডার্সের নামে। এ তথ্য পাওয়ার পর প্রতিষ্ঠানটি সম্পর্কে খোঁজ নেয় নিউজবাংলা। জানা যায়, ওরিয়েন্ট ট্রেডিং অ্যান্ড বিল্ডার্স লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠানের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান দ্য রিলায়েবল বিল্ডার্স। এর মালিক শফিকুল আলম মিথুন।

বুধবার ‘পিয়াসার বিএমডব্লিউ গাড়ির মালিক কে?’ শিরোনামে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পর দ্য রিলায়েবল বিল্ডার্সের মালিক শফিকুল আলম মিথুন একটি গণমাধ্যমের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।

তিনি বলেন, ‘ঢাকা মেট্রো-গ-৩৯-৮৫৭৪ নম্বরের বিএমডব্লিউ আমাদেরই ছিল। যেটা আমি ২০১৫ সালে কিনে ব্যবহার শুরু করি। ২০১৮ সালে গাড়িটি আমি আমার আপন ছোট ভাই রিফাত বিন আলমকে দিই। পরে ছোট ভাই সেটা বিক্রি করে দেয়। এরপর আমি আর কিছু জানি না। পিয়াসার গাড়ি জব্দ হওয়ার পরই একবার সন্দেহ হয়েছিল। বুধবার গাড়িটি নিয়ে খবর প্রকাশের পর জানতে পারি, গাড়িটি এখনও আমার প্রতিষ্ঠানের নামেই আছে।’

শফিকুল আলম মিথুনের ছোট ভাই রিফাত বিন আলম বলেন, ‘ভাইয়ার কাছ থেকে গাড়িটি নিয়ে আমি দুই বছর ব্যবহার করি। ২০২০ সালের এপ্রিল মাসে বারিধারার ৭১ প্রগতি সরণিতে অবস্থিত নিড ফোর স্পিড নামের একটি গাড়ির দোকানে এটি বিক্রি করে একটি পাজেরো কিনি।

‘সেই ক্রয়-বিক্রয়ের কাগজপত্রও আমার কাছে আছে। এরপর আমি আর কিছু জানি না। হঠাৎ পিয়াসাকে গ্রেপ্তারের পর আমার সেই পুরোনো গাড়ি দেখে আঁতকে উঠি। তখনও ভাবিনি বিআরটিএতে গাড়িটি আমাদের নামেই আছে। গাড়িটির বর্তমান মালিকানার তথ্য আপডেট হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘আমরা তো অনেক আগেই নাম পরিবর্তনের কাজ সেরে ফেলেছি। বিআরটিএতে গাড়িটির মালিকানায় এখনও আমাদের নাম কেন আছে বুঝতে পারছি না।’

রিফাত বিন আলমের বক্তব্যের সূত্র ধরে কথা বলেছে নিড ফোর স্পিডের মালিক আতিক রহমান খানের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘পিয়াসাকে বিআরটিএ থেকে নাম পরিবর্তনের জন্য বারবার চাপ দিয়েও কোনো কাজ হচ্ছিল না। একপর্যায়ে ফোনে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন তিনি।’

নিড ফোর স্পিডের মালিক আতিক বলেন, ‘আমরা মূলত পুরোনো গাড়ি বেচাকেনার ব্যবসা করতাম, কিন্তু করোনার কারণে আমাদের ব্যবসায় চরম ক্ষতি হয়। তাই গাড়ির ব্যবসা বন্ধ করে অন্য ব্যবসা শুরু করেছি।’

পিয়াসার বিএমডব্লিউ সম্পর্কে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ‘এটা এক বছর আগের কথা। সম্ভবত ২০২০ সালের এপ্রিল মাসে রিফাত বিন আলম নামের একজনের কাছ থেকে আমরা ঢাকা মেট্রো-গ-৩৯-৮৫৭৪ নম্বরের বিএমডব্লিউ এস২০৯ মডেলের সিলভার রঙের একটি গাড়ি এক্সচেঞ্জ করি।

‘কাগজে-কলমে আমরা তাদের কাছ থেকে একটি বিএমডব্লিউ গাড়ি কিনে আরেকটি পাজেরো গাড়ি তাদের কাছে বিক্রি করি। সে সময়ে রিফাত বিন আলমের সঙ্গে আমরা ১০০ টাকার স্ট্যাম্পে গাড়ি বিক্রির চুক্তিনামাও করি।’

নিড ফোর স্পিডের মালিক আতিক বলেন, ‘আমরা এই বিএমডব্লিউ কেনার কয়েক দিনের মধ্যেই পিয়াসা নামের মেয়েটি লকডাউনের মধ্যেই আমাদের কাছ থেকে গাড়িটি কিনে নেয়। তার কাছে গাড়ি বিক্রির সেই কাগজপত্রও আমাদের কাছে আছে। তখন আমরা পিয়াসাকে বিআরটিএ থেকে নাম পরিবর্তনের জন্য তেমন চাপ দিইনি। কারণ তখন লকডাউন চলছিল।

‘লকডাউন শেষ হলে আমরা পিয়াসাকে চাপ দিতে থাকি, আপনি বিআরটিএ থেকে নাম পরিবর্তন করে নেন। সে আজ করছি, কাল করছি বলে ঘোরাতে থাকে। একটা সময় সে আমাদের ফোন ধরাই বন্ধ করে দেয়। পরে ফোন ধরলেও লকডাউনের দোহাই দিতে থাকে। আমাদের চাপাচাপিতেই এ বছরের এপ্রিল মাসে পিয়াসা বিআরটিএতে আবেদন করে। জুলাই মাসে নাম পরিবর্তন হয়। সেই পরিবর্তনের একটা কপি আমরা রাখি, আরেকটা কপি যিনি মূল বিক্রেতা তাকে দিই।’

তিনি আরও বলেন, ‘এরপর আমরা বিআরটিএতে কথা বলে আপডেট করতে বলি। যেহেতু আমাদের টাকাপয়সা জমা দেয়া আছে, সব কাগজ আপডেট করা আছে। তখন বিআরটিএ থেকে আমাদের জানানো হয়, লকডাউন চললে তাদের সার্ভারও বন্ধ থাকে। তাই লকডাউন উঠে গেলে তারা গাড়ির নাম পরিবর্তন আপডেট করে দেবে। অথচ এই লকডাউনের মধ্যেই এই গাড়ি নিয়ে এত কিছু হয়ে গেল।’

গাড়িটির মালিকানা পরিবর্তনসংক্রান্ত বিআরটিএর একটি অনুলিপি পেয়েছে নিউজবাংলা। এতে দেখা যায়, ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা গত ১২ এপ্রিল ঢাকা মেট্রো-গ-৩৯-৮৫৭৪ নম্বরের বিএমডব্লিউ গাড়িটির মালিকানা পরবর্তনের আবেদন করেন। আবেদনে রেজিস্ট্রেশন কর্তৃপক্ষ সই করে ১২ জুলাই। আবেদনে পিয়াসা তার বনানীর বাসার ঠিকানা ব্যবহার করেন। বাবার নাম মাহবুব আলম বলে উল্লেখ করেন।

বিআরটিএর নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, ‘আমাদের সার্ভারে এখনও ঢাকা মেট্রো-গ-৩৯-৮৫৭৪ নম্বরের বিএমডব্লিউ গাড়িটি দ্য রিলায়েবল বিল্ডার্স নামেই নিবন্ধিত আছে। ২০২০ সালে এটার মালিকানা পরিবর্তন হওয়ার পরেও যদি আমাদের কাছে আসতে এত দিন লাগে, তাহলে বলতে হবে এর জন্য দায়ী তিনি, যিনি গাড়িটি কিনেছেন। কোনো অনিয়ম হলে সেটা পিয়াসা করেছেন। কারণ এতদিন নাম পরিবর্তন না করে তিনি বেআইনি কাজ করেছেন।’

গত মাসে বিএমডব্লিউ গাড়িটি পিয়াসার নামে রেজিস্ট্রেশন হলেও আপনাদের সার্ভারে নেই কেন, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘করোনায় আমাদের কার্যক্রম সীমিত আকারে চলছে। লকডাউনে অফিস বন্ধ থাকে। অফিস বন্ধ থাকলে আমাদের সার্ভারেও কোনো কিছু আপডেট করা হয় না।’

তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘পিয়াসা ২০২০ সালে গাড়ি কিনে কেন ২০২১ সালের এপ্রিলে মাসে নিজের নামে রেজিস্ট্রেশনের আবেদন করবে? এতদিন সে কী করেছে? তার মানে গাড়িটি নিয়ে অন্য কোনো উদ্দেশ্য ছিল তার।’ সূত্র: নিউজবাংলা

বিজ্ঞাপন

এ জাতীয় আরো খবর