1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : rubel :
  4. [email protected] : shaker :
  5. [email protected] : shamim :
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:৩৪ পূর্বাহ্ন

ভুয়া রফতানি বিল দেখিয়ে ৩ কোটি ১৭ লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকি

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১১৯ বার পড়া হয়েছে

বন্ড সুবিধায় আনা কাঁচামাল অবৈধভাবে অপসারণ করে এবং ভুয়া রফতানি বিল দেখিয়ে সরকারের ৩ কোটি ১৭ লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকি দিয়েছে চট্টগ্রামের লেমন্ড অ্যাপারেলস অ্যান্ড গার্মেন্টস লিমিটেড। বিষয়টি ধরা পড়ার পর রাজস্ব আদায়ে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। পাশাপাশি বকেয়া রাজস্ব ৩০ দিনের মধ্যে জমা দেওয়ার জন্য প্রতিষ্ঠানের পরিচালক মো. ইকবাল চৌধুরীকে সোমবার কারণ দর্শানো নোটিস দিয়েছে চট্টগ্রামের কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট।

নোটিসে বলা হয়েছে, লেমন্ড অ্যাপারেলস অ্যান্ড গার্মেন্টস লিমিটেড মাস্টার এলসির বিপরীতে বন্ড সুবিধায় আমদানি করা কাঁচামাল অবৈধ অপসারণ, রফতানি চুক্তি জালিয়াতি, রফতানি ব্যর্থতা ও ভুয়া রফতানি বিল তৈরি করেছে, যা প্রমাণিত হয়েছে। নোটিসে বলা হয়, প্রতিষ্ঠানটি ২০১৯ সালে বন্ড সুবিধায় ২৬ হাজার ১০০ কেজি ফেব্রিক্স আমদানি করে, কিন্তু রাজস্ব কর্মকর্তারা সরেজমিন কারখানা পরিদর্শনে গিয়ে পণ্য না পাওয়া এবং অবৈধ কাঁচামাল অপসারণের দায়ে মামলা করেন। মামলার বিচারাদেশ নং-২৯/২০২০ তাং-২২/১০/২০২০-এর মাধ্যমে দাবিনামা জারি করা হয়। দাবি করা টাকা যথাসময়ে পরিশোধ না করায় এই দফতর থেকে ২০২ ধারা জারি করা হয় এবং সার্টিফিকেট মামলা করা হয়।

এ ছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংকের দেওয়া চিঠি, এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড এবং অগ্রণী ব্যাংকের কাছ থেকে প্রতিষ্ঠানটির রফতানি চুক্তি পর্যালোচনা করে কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট, চট্টগ্রাম প্রমাণ পায়, প্রতিষ্ঠানটি মাস্টার এলসি/সেলস কন্ট্রাক্টের বিপরীতে বন্ড সুবিধায় আমদানি করা কাঁচামাল দিয়ে যথাসময়ে পণ্য উৎপাদন করে রফতানি করেনি। প্রতিষ্ঠানটি জালিয়াতির আশ্রয় নিয়ে ব্যাংকে ভুয়া রফতানি চুক্তির কাগজপত্র সরবরাহ করেছে। ক্রেতা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে ই-মেইলে যোগাযোগ করে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। এ ছাড়া রফতানি চুক্তির আওতায় বিল অব ল্যাডিংয়ে যেসব কন্টেইনারের নম্বর ব্যবহার করেছে সেগুলো চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের কন্টেইনার ট্র্যাকিং সিস্টেমে যাচাই করে কোনো অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি। প্রতিষ্ঠানটি ভুয়া রফতানি কাগজপত্র বানিয়ে বন্ড সুবিধায় আমদানি করা কাঁচামাল অবৈধভাবে অপসারণ করেছে। ফলে সরকারের ৩ কোটি ১৭ লাখ ৬৮ হাজার ৭০০ টাকা রাজস্ব ফাঁকি দেওয়া হয়েছে।

নোটিসে আরও বলা হয়, কাস্টমস আইন অনুযায়ী কেন লেমন্ড অ্যাপারেলস অ্যান্ড গার্মেন্টস লিমিটেডের লাইসেন্স বাতিল, ফাঁকি দেওয়া রাজস্ব আদায়, অর্থদণ্ড আরোপসহ প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না তার কারণ ব্যাখ্যাসম্বলিত লিখিত জবাব এই চিঠি প্রাপ্তির ৩০ দিনের মধ্যে চট্টগ্রামের কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট দফতরে দাখিল করার জন্য বলা হয়।

একই সঙ্গে প্রতিষ্ঠানটি ব্যক্তিগত শুনানিতে আগ্রহী হলে তা লিখিত আকারে উল্লেখ করতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কারণ দর্শানো নোটিসের জবাব ও দাবি করা অর্থ পরিশোধে ব্যর্থ হলে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে একতরফাভাবে পরবর্তী সময়ে আইনানুগ সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথাও চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রামের লেমন্ড অ্যাপারেলস অ্যান্ড গার্মেন্টস লিমিটেডের পরিচালক মো. ইকবাল চৌধুরী বলেন, নোটিস ইস্যু করা হয়েছে জেনেছি, এখনও হাতে পাইনি। পেলে জবাব দেব। আমাদের আরও যে পরিচালক রয়েছেন তাদের সঙ্গে আলাপ করব। অনিয়ম যদি হয়ে থাকে, রাজস্ব ও জরিমানা যদি দিতে হয় দেব, না হলে আইনগত যে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার তা নেব।

বিজ্ঞাপন

এ জাতীয় আরো খবর