1. successrony@gmail.com : admi2017 :
  2. editor@dailykhabor24.com : Daily Khabor : Daily Khabor
সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০৫:৪৮ অপরাহ্ন

ঢাবি প্রশাসনকে না জানিয়েই নেয়া হচ্ছে সান্ধ্যকোর্সে ভর্তি পরীক্ষা

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ২০ নভেম্বর, ২০২০
  • ৪ বার পড়া হয়েছে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সব বিভাগ ও ইন্সটিটিউটের সরাসরি ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ থাকলেও কর্তৃপক্ষকে না জানিয়েই সান্ধ্যকালীন এমবিএ কোর্সের ভর্তি পরীক্ষা নিচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ।

অথচ বাণিজ্যিক ভিত্তিতে পরিচালিত এসব অনিয়মিত কোর্সে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত ছিল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের। এ সিদ্ধান্তও লঙ্ঘন করা হচ্ছে এই পরীক্ষা আয়োজনের মধ্য দিয়ে।

ভর্তি পরীক্ষা নিতে সহযোগিতার জন্য ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকদের চিঠি পাঠিয়েছেন ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক মুহাম্মদ আবদুল মঈন। চিঠিতে বলা হয়েছে– শুক্রবার আজিমপুর গভর্নমেন্ট গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজে বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের এমবিএ (ইভিনিং) প্রোগ্রামের (৪৫তম ব্যাচ) ভর্তি পরীক্ষার আয়োজন করা হয়েছে। বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত এ পরীক্ষা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) কিছুই জানেন না বলে জানা গেছে।

করোনাভাইরাসের কারণে মার্চ মাস থেকে বন্ধ রয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সব আবাসিক হল ও শ্রেণিকক্ষের প্রত্যক্ষ শিখন-শিক্ষণ প্রক্রিয়া। সম্প্রতি স্বাস্থ্যবিধি মেনে যেসব বিভাগের অনার্স ও মাস্টার্সের স্বল্পসংখ্যক পরীক্ষা বাকি রয়েছে, সেগুলো নেয়ার অনুমতি দেয়া হলেও বিশ্ববিদ্যালয় খোলা না হলে নেয়া হবে না প্রথম, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় বর্ষের সব পরীক্ষা। কবে নাগাদ বিশ্ববিদ্যালয় খোলা হবে সে বিষয়েও নেই কোনো নিশ্চিয়তা।

এমতাবস্থায় মহামারীর মধ্যেই আজ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের এমবিএর (ইভিনিং) ভর্তি পরীক্ষা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপক বলেন, শুক্রবার ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে এবং এ ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশিত সব স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে পালন করা হবে।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে নানা সমালোচনার মুখে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিল সান্ধ্যকোর্স পরিচালনার সময়োপযোগী নীতিমালা করতে বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক নাসরীন আহমাদকে প্রধান করে একটি কমিটি করে দেয়। কমিটিতে আরও ছিলেন উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদ, সাবেক কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. কামাল উদ্দীন, ১৩টি অনুষদের ডিন ও দুটি ইন্সটিটিউটের (আইবিএ এবং শিক্ষা ও গবেষণা) পরিচালক। এই কমিটিকে পরবর্তী ৫ সপ্তাহের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়। এ সময়ের মধ্যে নতুন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের সান্ধ্যকালীন কোর্সে ভর্তি ও বিজ্ঞাপন বন্ধ রাখার এবং যেসব কোর্সে ভর্তির বিজ্ঞাপন হয়েছে সেগুলোর কার্যক্রম স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এ সিদ্ধান্ত অমান্য করে আজ ভর্তি পরীক্ষা নেয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে জানতে বিজনেস অনুষদের ডিন ড. মুহাম্মদ আবদুল মঈনের মুঠোফোনে ফোন দেয়া হলেও তিনি সাড়া দেননি।

ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে জানতে চাইলে উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এএসএম মাকসুদ কামাল বলেন, প্রশাসনে অগোচরেই এই পরীক্ষা হচ্ছে। এই বিষয়ে আমরা জানি না। এখন করোনার জন্য সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। অন্যদিকে সান্ধ্যকোর্সের জন্য নীতিমালা নির্ধারণ না হওয়া পর্যন্ত সান্ধ্যকোর্সে কোনো পরীক্ষা না নেয়ার ব্যাপারে নির্দেশনা আছে। এ বিষয়ে উপাচার্যই বলতে পারবেন।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, এটি পুরনো পরীক্ষা কিনা ডিনের সঙ্গে কথা না বলে আমি বলতে পারব না।
পরীক্ষার জন্য অনুমতি নেয়া হয়েছে কিনা জানতে চাইলে উপাচার্য বলেন, ‘আমার তো এগুলো কিছুই মনে পড়ছে না। এটি কী পরীক্ষা সেটিও জানি না। ডিনের সঙ্গে কথা না বললে কিছু বুঝতে পারব না। ’

অনুমতি ছাড়া পরীক্ষা নেয়া হলে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হবে কিনা জানতে চাইলে ভিসি বলেন, ‘এটার আইনগত বা নীতিগত দিকটা কি দেখতে হবে। ওখানে কাদের পরীক্ষা সেটির ডকুমেন্ট না দেখলে বা ডিনের সঙ্গে কথা না বললে পুরাটা বোঝা যাবে না। আগেই মন্তব্য করা ঠিক হবে না।’

এ জাতীয় আরো খবর