1. [email protected] : admi2017 :
  2. [email protected] : Daily Khabor : Daily Khabor
  3. [email protected] : rubel :
  4. [email protected] : shaker :
  5. [email protected] : shamim :
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:২৮ পূর্বাহ্ন

সিনিয়রদের দোষারোপ করে পিছু হটা যাবে না : হাইকমান্ড

ডেইলি খবর নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১১৯ বার পড়া হয়েছে

কোন অজুহাত দিয়ে আন্দোলন থেকে পিছু হটা যাবে না। সিনিয়র নেতাদের সহযোগিতা ও নেতৃত্বে আন্দোলন সফল করতে হবে। নইলে আগে থেকে দায়িত্ব থেকে নিজ ইচ্ছায় সরে যাওয়ার আহবান জানিয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। ধারাবাহিক বৈঠকের তৃতীয় দিনে দলের অঙ্গসংগঠনের নেতাদের সঙ্গে ‘শলাপরামর্শে’ এসব কথা বলেন তিনি।

গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার বিকাল ৪টায় এ বৈঠক শুরু হয়। রাত নয়টা পর্যন্ত চলে রুদ্ধদ্বার এই বৈঠক। শেষ দিনের বৈঠকে সাংগঠনিক পরামর্শ ও দিক নির্দেশনা দেন তারেক রহমান।

বৈঠকে ওলামা দলের নেতা শাহ নেছারুল হক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের কাছে অভিযোগ করেন, জেলায় গেলে মূল দলের নেতারা তাদের কদর করেন না। অনুষ্ঠানে ডাকেন না। এর জবাবে তারেক রহমান তাদেরকেই দুষেন। বলেন, নিজেদের জায়গা নিজেদের করে নিতে হবে। এজন্য আরও সক্রিয় হতে হবে। মূল্যায়ন অর্জন করে নিতে হয়। ওলামা দলকে আরও সংগঠিত করতে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের সানুগ্রহ চান নেছারুল হক। নেতাদের সঙ্গে সরাসরি কথা বলার অনুরোধ রাখেন। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আশ্বাস দিয়ে বলেন, আপনারা পারবেন না কেন? দোষারোপ না করে নিজেরা শক্তি বাড়ান। ওলামা দলের প্রয়াত সভাপতি আব্দুল মালেক সাহেব পেরেছেন। আপনাদেরও সক্ষমতা অর্জন করতে হবে। নির্দেশনা মানাতে ও বাস্তবায়ন করতে হবে।

বৈঠকে থাকা ছাত্রদলের সহ সভাপতি মামুন খান সময়ের আলোকে বলেন, মূলত সব সংগঠনের ‘সুপার ফাইভ’ নেতা বক্তব্য রাখেন। সবাই সুযোগ পাননি৷ বেশিরভাগ নেতা তাদের চাওয়া পাওয়া ও ত্যাগের মূল্যায়নের কথা বলেছেন। আর ঘরোয়া কর্মসূচি নয়, যেকোনো মূল্যে আন্দোলনে সফল হতে হবে। এজন্য সিনিয়র নেতাদের সক্রিয় হওয়ার কথা বলেছেন। মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটি ভেঙে দিতে বলেছেন। সব শেষে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জানান ‘এতোক্ষণ আপনারা যা বললেন সব ভালো দিক। কিন্তু মাঠের কর্মসূচি তো আপনাদেরই বাস্তবায়ন করতে হবে। এগুলো তো আমি কিংবা মহাসচিব করে দিব না। আপনাদের লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত হতে হবে। সেজন্য যা প্রয়োজন আমরা দেখবো।’

মামুন জানান, মহিলা দল ও শ্রমিক দল নিয়ে খুবই অসন্তোষ প্রকাশ করেন তারেক রহমান। খুব দ্রুতই তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে হয়তো। সাংবাদিকদের ‘খবরের খোরাক’ তুলে না দিতে মহিলা দলকে কড়া শাসিয়েছেন। সম্প্রতি প্রেস ক্লাবে মহিলা দলের মারামারিতে ক্ষুব্ধ ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। দ্রুত এসবের বিহিত করতে বলেছেন।

বৈঠকে থাকা একজন যুবদল নেতা জানান, বিভিন্ন কমিটির স্বচ্ছতা নিয়ে অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করলে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বলেন ‘আপনারাই তো সাজেশন দেন, সে অনুযায়ী আমি অনুমোদন দেই। পরে নিজেরা ঝগড়া লাগেন। পরিস্কার করে বলে দিচ্ছি দায়িত্ব পালন না করতে পারলে সরে যান, আরেকজনকে কাজের সুযোগ দিন। কোনো অজুহাত মানা হবে না৷ আপনারা আজ যুবদল করেন। স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস সাহেবও যুবদলের নেতৃত্বে ছিলেন। তারা সফল হতে পারলে আপনারাও পারবেন। শুধু সিনিয়র নেতাদের দোষারোপ করা যাবে না। তাদের সঙ্গে সমন্বয় করেই কাজ করতে হবে।

বৈঠকে ২০ দল ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নিয়েও আলোচনা হয়। ওলামা দলের একজন নেতা বলেন, ২০দলের এমনও দল আছে যে ‘ওয়ান ম্যান আর্মি’। কিন্তু তাকেও কদর করতে হয় আমাদের। চেয়ার ছেড়ে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। অথচ আন্দোলনে কোনো কাজে আসে না। ঐক্যফ্রন্টকেও আমরা অযথা হাইলাইট করছি। এবারের নির্বাচন খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের নেতৃত্বে হতে হবে।

বৈঠকে তারেক রহমান জানিয়েছেন বিএনপি এবার এই সরকারের অধীনে ভোট করবে না। নির্বাচন হতে দেওয়া হবে না। সেজন্য দাবি আদায় করতে হবে৷ এর বিকল্প নেই। তাই সব সংগঠনকে সুসংগঠিত হতে হবে।

সবশেষে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে সবার পক্ষ থেকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। এর আগে স্থায়ী কমিটির সদস্যরাও বক্তব্য রাখেন।

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজনৈতিক কর্মকৌশল ঠিক করার লক্ষ্যে নেতাদের মতামত জানতে মঙ্গলবার থেকে এই ধারাবাহিক বৈঠক শুরু হয়েছে।

তারেক রহমানের সভাপতিত্বে বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু। বৈঠকের তৃতীয় দিনের দলের অঙ্গসংগঠনের অর্থাৎ ছাত্রদল, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, মহিলা দল, তাঁতী দল, ওলামা দল, মৎস্যজীবীসহ অঙ্গসংগঠনের সভাপতি ও সম্পাদকসহ কেন্দ্রীয় নেতা মিলে ৯২ জন অংশ নেন।

প্রথম দিন দলের ভাইস চেয়ারম্যান ও দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যদের এবং দ্বিতীয় দিন দলের যুগ্ম মহাসচিব, সাংগঠনিক সম্পাদক ও সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্যদের মতামত জেনেছেন তারেক রহমান।

বিজ্ঞাপন

এ জাতীয় আরো খবর